ঢাকা   মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯ | ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  আজ ঢাকায় আসছেন গাম্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: হাইকোর্ট (জাতীয়)         ধান পোড়ানোর ঘটনা পরিকল্পিত: খাদ্যমন্ত্রী (জাতীয়)        মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠানোর বিষয়ে বৈঠক চলতি মাসেই (জাতীয়)        খালেদাকে কেরাণীগঞ্জ কারাগারে স্থানান্তরে বিএনপির খুশি হওয়ার কথা: তথ্যমন্ত্রী (রাজনীতি)         সরকার মাদক নিয়ন্ত্রণে সব ধরনের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        ঢাকায় শিশু হাসপাতালের শৌচাগার থেকে নবজাতক উদ্ধার (ঢাকা)        চিকিৎসার জন্য লন্ডন গেলেন রাষ্ট্রপতি (জাতীয়)        মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে নানামুখী উদ্যোগ (বিবিধ)        চিকিৎসক-নার্সদের ঢাকায় বদলির তদবির গ্রহণ করা হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী (জাতীয়)      

সরকারি হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

Logo Missing
প্রকাশিত: 09:57:59 pm, 2019-03-12 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

আজ ডেক্সঃ দেশের সব সরকারি হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সব সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ না থাকায় বাধ্য হয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলোর মুখাপেক্ষী হতে হয় মানুষজনকে। কিন্তু অতিরিক্ত খরচের কারণে সাধারণ মানুষ এ সেবা নিতে পারে না। সাধারণ মানুষ কম টাকায় যাতে আইইসিউ’র সুবিধা পেতে পারেন সেই জন্য সব সরকারি হাসপাতালে এর ব্যবস্থা করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে-বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তিনি এ নির্দেশনা দেন। একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাশেষে প্রধানমন্ত্রীর এমন নির্দেশনার তথ্য জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ৩৭৯ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘সরকারি কর্মচারী হাসপাতালকে ৫০০ শয্যায় উন্নীতকরণ’ প্রকল্প একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রকল্পের আওতায় সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সাধারণ জনগণের জন্য আধুনিক ও বিশেষায়িত সেবা দেওয়ার প্রয়োজনীয় সুবিধা সৃষ্টি করা হবে। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন। হাসপাতাল প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাসপাতাল খোলামেলা পরিবেশে হতে হবে। এগুলো যেন ফ্ল্যাট বাড়ির মতো না হয়। ফুডকোর্ট, বাচ্চাদের ডে কেয়ার, চিকিৎসক, নার্স এবং টেকনিশিয়ানদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকতে হবে। হাসপাতালে মনোরম পরিবেশ করতে একটা বাগান থাকতে পারে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা যাতে বেশি মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে পারে সেজন্য আলাদা কর্নার থাকতে পারে। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ক্যান্সার, কিডনি পক্ষাঘাত, হার্ট-বক্ষব্যাধি চিকিৎসা সুবিধা যাতে সব হাসপাতালে থাকে এ বিষয়টা নিশ্চিত করতে হবে। বাংলাদেশের সব জেলা-উপজেলায় উন্নতমানের চিকিৎসা সেবা যাতে পায় সেই ব্যবস্থা করা হবে। হাসপাতালে কেন্দ্রীয় এয়ারকন্ডিশন ব্যবস্থা করা যাবে না। সেটা যাতে খোলামেলা করা হয়, কারণ গরম মাত্র তিন থেকে চারমাস থাকে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভায় (একনেক) ২ হাজার ৬৫১ কোটি টাকায় ব্যয় সম্বলিত ৬টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে। ৩১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের বরিশাল (চর কাউয়া) হতে ভোলা (ইলিশা ফেরিঘাট) হয়ে লক্ষ্মীপুর পর্যন্ত যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ’ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। ৮৫৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘শরীয়তপুর (মনোহর বাজার)- ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাট পর্যন্ত সড়ক উন্নয়ন’ এবং ‘নীলফামারী-ডোমার সড়ক ও বোদা-দেবীগঞ্জ সড়ক (নীলফামারী অংশ) এবং ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ফুলবাড়ী-পাবর্তীপুর সড়ক যথাযথ মানে উন্নীতকরণ’ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ‘শেখ হাসিনা নকশীপল্লি, জামালপুর প্রকল্পের ব্যয় ৭১২ কোটি এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের ‘লেবু জাতীয় ফসলের সম্প্রসারণ, ব্যবস্থাপনা ও উৎপাদন বৃদ্ধি’ প্রকল্পের ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ১২৬ কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রী ও একনেক-এর বিকল্প চেয়ারম্যান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়কমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা সভার কার্যক্রমে অংশ নেন। ৭০ হাজার ৭৭২ কোটি টাকার এডিপি বাস্তবায়ন: ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বাস্তবায়ন হার ৩৯ দশমিক ১৩ শতাংশ। যা টাকা অংকে ৭০ হাজার ৭৭২ কোটি টাকা। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা শেষে সরকারের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ এবং মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) এডিপি বাস্তবায়নের তথ্য তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, গত বছর একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়ন হার ছিল ৩৮ দশমিক ০১ শতাংশ যা টাকার অংকে ৬২ হাজার ৩৭২ কোটি টাকা। এতে গতবছরের তুলনায় এডিপি বাস্তবায়ন হার বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের (২০১৮-১৯) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে সরকারি তহবিলের বরাদ্দ ছিল এক লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা। সেখান থেকে সংশোধিত এডিপিতে ২৮ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা বাড়িয়ে চাহিদা দেওয়া হয়েছে এক লাখ ৪১ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা। এছাড়া বৈদেশিক সহায়তার ক্ষেত্রে বরাদ্দ ছিল ৬০ হাজার কোটি টাকা। সেখান থেকে ৯ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে চাহিদা দেওয়া হয়েছে ৫১ হাজার কোটি টাকা। স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলোর ক্ষেত্রে বরাদ্দ ছিল ৭ হাজার ৮৬৯ হাজার টাকা। সেখান থেকে ৫৭ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে চাহিদা দেওয়া হয়েছে ৭ হাজার ৮১১ কোটি টাকা।