ঢাকা   বৃহস্পতিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ (ক্রিকেট)        নার্সিং প্রশিক্ষণ আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী (জাতীয়)        ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে মেগা প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে: সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে মেয়র খোকন (জাতীয়)        স্কুলে স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহের চিন্তা: তথ্য প্রতিমন্ত্রী (জাতীয়)        দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে এনবিআর এর টাস্কফোর্স কমিটি গঠন (ব্যবসা-বাণিজ্য)        ঢাবিতে ছাত্রলীগের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের হাতাহাতি (অপরাধ)        রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট দেওয়ার সঙ্গে জড়িতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পক্ষে রয়েছে চীন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        নিউইয়র্ক সফরে দুটি সম্মাননা পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী (জাতীয়)        ময়মনসিংহে ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ খুন, স্বামী আটক (ময়মনসিংহ)      

চট্টগ্রামে কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে ধর্ষণে মুমূর্ষু তরুণী

Logo Missing
প্রকাশিত: 12:00:06 am, 2019-07-04 |  দেখা হয়েছে: 8 বার।

আজ ডেক্সঃ কাজ শেষে অটোরিকশায় করে বাড়ি ফেরার পথে চট্টগ্রামের আনোয়ারায় এক তরুণীকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। গত বুধবার রাতে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীকে (১৮) মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রামে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাত থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত তাকে পাঁচ ব্যাগ রক্ত দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার। তরুণী আজকে চোখ মেলে তাকিয়েছে। অল্প অল্প কথাও বলতে পারছে। পুলিশের ধারণা, এ ঘটনায় অটোরিকশার চালক এবং যাত্রীবেশী দুই দুর্বৃত্ত জড়িত। নির্যাতিত তরুণী কোরিয়ান ইপিজেডের কর্ণফুলী সু ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন। চন্দনাইশের বাড়ি থেকেই তিনি প্রতিদিন কর্মস্থলে আসা-যাওয়া করেন। জ্ঞান ফেরার পর তরুণীর সঙ্গে কথা হয়েছে জানিয়ে আনোয়ারা থানার ওসি দুলাল মাহমুদ বলেন, অটোরিকশায় যারা ছিল তারা অপরিচিত বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে তাদের শারীরিক গঠনসহ কিছু বর্ণনা দিয়েছেন। সেই তথ্য ধরেই আমরা কাজ করছি। তরুণীর কাছ থেকে তথ্যের বরাত দিয়ে ওসি দুলাল বলেন, ফ্যাক্টরি থেকে বেরিয়ে বাড়ি ফিরতে আনোয়ারা চাতরি চৌমুহনী এলাকায় এসে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ওঠেন। ওই অটোরিকশায় চালক ছাড়া আরও দুইজন ছিল। তারাই ওই তরুণীকে কালার মার দিঘী সংলগ্ন চায়না রোডে নিয়ে যায়। এলাকাটি নির্জন। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে ধারণা করছি। ধর্ষণের পর ওই তরুণীকে চাতরি চৌমুহনী ও চায়না রোডের সংযোগ অংশে সড়কের পাশে ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়। খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান কর্ণফুলী থানার ওসি আলমগীর মাহমুদ। রাত সাড়ে ১২টার দিকে হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মো. আমির আমাকে খবর দেয়। গিয়ে দেখি মেয়েটির মুর্মূষ অবস্থা, প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। রাতেই দুই ব্যাগ রক্ত যোগাড় করে দেওয়া হয়। সকালেও রক্ত দেওয়া হয়েছে। এদিকে ওই কিশোরীকে গণধর্ষণের ঘটনায় চারজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা দায়ের হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে কিশোরীর বড় ভাই বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। আনোয়ারা থানার ওসি দুলাল মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। ওই কিশোরী এখনও চিকিৎসাধীন। সুস্থ হলে তার সাক্ষ্য নেয়া হবে।