ঢাকা   ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  একনেকে ১৩ হাজার ৬৩৯ কোটি ব্যয়ে ৯ প্রকল্প অনুমোদন (জাতীয়)        পানির দাম ৮০ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব অযৌক্তিক: টিআইবি (জাতীয়)        চীনকে মাস্ক-গ্লাভসসহ চিকিৎসা সামগ্রী দিল বাংলাদেশ (জাতীয়)        কচুরিপানা খেতে বলিনি, গবেষণা করতে বলেছি: পরিকল্পনামন্ত্রী (জাতীয়)        দেশে করোনা ভাইরাসের রোগী মেলেনি, আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ (জাতীয়)        শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ দ্বিতীয়: সেনাপ্রধান (জাতীয়)        ফখরুলের সঙ্গে কথোপকথনের রেকর্ড আছে: কাদের (রাজনীতি)        দক্ষিণ এশিয়ায় বসবাসের জন্য সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাংলাদেশ (জাতীয়)        খালেদার প্যারোল নিয়ে কাদেরের সঙ্গে কথা হয়নি: ফখরুল (রাজনীতি)        দেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে বিতরণ কোম্পানিগুলোর ভূগর্ভস্থ লাইন নির্মাণের উদ্যোগ (জাতীয়)      

রৌমারীতে দুই বোনের আকুতি কেউ শোনে না !

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:09:25 am, 2019-09-09 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

রৌমারী প্রতিনিধি: পাগলী দুই বোনের আকুতি মেম্বার, চেয়ারম্যান ও এলাকার সচেতন মহলসহ কেউ শোনে না। দিনের পর দিন তাদের কাছে ধন্না দিয়েও কোন সাহায্য সহযোগিতা না পেয়ে জীবন নির্বাহ করতে বেচে নেয় ভিক্ষাবৃত্তি। কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের শৌলমারী হাফাতিকান্দা উত্তর গ্রামের বাসিন্দা আহেমা খাতুন (৫৪) ও ছোট বোন আসরাফন নেছা (৫৩)। দুই বোনের ভিটেমাটি তো দুরের কথা থাকার ঘরটুকুও নেই। থাকেন এক ভাইয়ের ছেলে ভাতিজা মাইদুল ইসলাম ওরফে মহিম আলীর জায়গায়। যে কোন সময়ে ভাতিজা তাদেরকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার আশঙ্কা করছেন দুই বোনকে। এখন পর্যন্ত তারা জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের ঘর, স্বামী পরিত্যাক্ত ভাতা, বিধবাভাতা, ফেয়ারকার্ড ও ভিজিএফের নামসহ সরকারি কোন সুবিধা না পাওয়ায় সাংবাদিকদের কাছে দুঃখের সাথে অভিযোগ করেন আহেমা ও আসরাফন। ৮ সেপ্টেম্বর রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গত ২৫ বছর আগে আহেমা খাতুনের বিয়ে হয় একই ইউনিয়নের ডাংগুয়াপাড়া গ্রামের নইমউদ্দিনের সাথে। বিয়ের ২বছর পরেই তার স্বামী মারা যায়। তাদের ঘরে কোন সন্তানাদি না থাকায় স্বামীর বাড়িতে আশ্রয় দেওয়া হয়নি। বাধ্য হয়ে চলে আসেন বাবার বাড়িতে। অপর দিকে বড় বোনের বিয়ের কিছুদিন পরে ছোট বোন আসরাফন নেছার বিয়ে হয় কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলায়। বাকপ্রতিবন্ধি হওয়ায় তার স্বামী তাকে বাড়ি থেকে তারিয়ে দেয়। একই অবস্থায় সেও বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। সেই থেকে দুইবোন একসাথে থাকেন। তার বাবা-মা কেউ নেই। ভাইয়েরা স্ত্রী সন্তান নিয়ে অন্যত্রে বসবাস করছেন। ভাতিজা মহিম আলী ৩শতক জমি ক্রয় করে সেখানে বসবাস করছেন। মানবিক কারনে তার ভাতিজা অসহায় পাগলী দুই ফুফুকে ছোট একটি কুটিরে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়।এব্যাপারে ২নং শৌলমারী ইউপি সদস্য শাফিউল ইসলাম শাফী বলেন, এবিষয় আমি কিছু জানি না। ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ হাবিবুর রহমান হাবিল জানান, মহিলা ও পুরুষ মিলে তিনজন ইউপি সদস্য থাকা সত্বেও এত বড় তথ্য রয়েছে এটা দুঃখজনক। পাগলী দুইবোনের বিষয় আমাকে কোন কিছু জানায়নি ইউপি সদস্যরা। আগামী ২/১ দিনের মধ্যে তদন্ত করে আমার ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে তাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা দেওয়া হবে। রৌমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্ল্যাহ্ বলেন , অসহায় দুই বোনের কথা এই মাত্র আপনাদের কাছে শুনলাম বিষয়টা খুব দু:খ জনক। এর জন্য দায়ী ওই এলাকার ইউপি সদস্যরা। তিনি আরও বলেন এই মূহুর্ত্যে আমার কাছে কোনো প্রকার বরাদ্দ নাই । পরবর্তিতে আমার উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা দেওয়া হবে।