ঢাকা   শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  সুনামগঞ্জে শিশু তুহিন হত্যা: বাবার পক্ষে লড়বেন না কোনো আইনজীবী (আইন ও বিচার)        যেখানে দুর্নীতি-টেন্ডারবাজি, সেখানেই অভিযান: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        সড়কে দুর্ঘটনা এাড়তে সবাইকে সচেতন হবার আহবান প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)        বাংলাদেশের কৃষি এখন বিশ্বের অন্যতম রোল মডেলু: খাদ্যমন্ত্রী (জাতীয়)        প্রচুর অন্যায় এদেশে গেড়ে বসে আছে: পরিকল্পনামন্ত্রী (জাতীয়)        জামালপুরে ঘুষের টাকাসহ হাসপাতাল কর্মচারী আটক (জেলার খবর)        আজারবাইজানের ন্যাম সম্মেলনে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী (জাতীয়)        সংবাদকর্মীদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস তথ্য প্রতিমন্ত্রীর (জাতীয়)        আবরার হত্যা নিয়ে বিএনপির নোংরা রাজনীতি পরিহার করা উচিত: হানিফ (রাজনীতি)        জামালপুরে শিশু নির্যাতন সম্পর্কে স্বভাব নেতাদের সাথে কর্মশালা (জামালপুরের খবর)      

জামালপুরে শিশু নির্যাতন কারী উজ্জলের শাস্তির দাবীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

Logo Missing
প্রকাশিত: 03:07:43 pm, 2019-09-24 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

এম এ রফিক: জামালপুর সদর উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের পশ্চিম রণরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেনীর এক কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ভাবে প্রলোভন এবং হয়রানি করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ও এলাকা বাসী। গত সোমবার দুপুরে পশ্চিম রণরামপুর ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিবাবক এবং এলাকাবাসী আয়োজনে একটি বিক্ষোভ বের করে, রণরামপুর বাজারসহ বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এসে শেষ করে। বিক্ষোভ মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগে সদস্য মজিবর রহমান, ওয়ার্ড সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি- এনামুল হক, স্থানীয় রিপন, চঞ্চল, এলিন, রতন, আব্দুর কাদেরসহ অনেকে। এ সময় বক্তারা বলেন দুদু মিয়ার ছেলে উজ্জল মাষ্টার বিভিন্ন সময় কোমলমতি মেয়েদেরকে ত নির্যাতন করেছেন । ২০১১ সাল থেকে বিদ্যালয়ের সভাপতি মাধ্যমে পর্যাপ্ত শিক্ষক না থাকায়, প্রাইভেটের সুবিধার জন্য, বিদ্যালয়ে প্যারা শিক্ষক হিসেবে চাকরি নেন উজ্জল। ওই বিদ্যালয়ের চাকরি করার সুবাদে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের তার কাছে প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করতেন। পরে ২০১৫ সালের শেষের দিকে এই বিদ্যালয়ের একটি মেয়েকে তার লালসার শিকারে পরিনত করে। ওই ঘটনায় মেয়েটি গর্ভবতী হলে, এলাকাবাসীর চাপে তাকে বিয়ে করতে বাধ্য হয়। এর পর নানা ভাবে আরো ৫টি কোমলমতি শিক্ষার্থীকে তার নির্যাতনের শিকার করলেও স্থানীয় মাতাব্বরদের সমঝতায় তা ধামাচাপা দেওয়া হয়। বর্তমানে উজ্জল ন্যাশনাল সার্ভিসের কল্যাণে এই বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন। সে শনিবার সকালে বিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থী হয়রানি করার পর এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়৷ এ ঘটনা সম্পর্কের বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুলতানা খাতুন বলেন- শিক্ষার্থীর বাবা আমার কাছে এসে বিচার চেয়েছেন। আমি ঘটনাটি সভাপতিকে বলেছি। প্রশাসনিক কোন ব্যবস্থা নিয়েছেন কিনা জানতে চাওয়া হলে, তিনি এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেন নি বলে জানান। বিদ্যালয়ের সভাপতি শামীম জানান- আমার বাবা এ বিদ্যালয়ের সভাপতি ছিলেন, সেই সুবাদে আমিও সভাপতি। তিনি আরো বলেন আমি নান্দিনা বাজারে ব্যাবসা নিয়ে ব্যাস্ত থাকি। আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি, এটাকে কোন সমস্যা মনে করি না। অভিযুক্ত শিক্ষককে বিদ্যালয় থেকে বের করে দিয়েছি। শরিফপুরের ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম আলম জানান আমি ঘটনাটি শুনেছি। ওই শিক্ষক ন্যাশনাল সার্ভিসের মাধ্যমে বিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করেন। জামালপুর সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাহিদা আক্তার জানান কোন প্রকার লিখিত অভিযোগ এখনো পযর্ন্ত আসেনি। অভিযোগ পেলে ন্যাশনাল সার্ভিসের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। সদর উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকতা মাজাহারুল ইসলাম জানান আমার কাছে এখন পর্যান্ত লিখিত অভিযোগ আসেনি। অফিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো। ওই বিষয়ে জামালপুর যুব উন্নয়ন কর্মকতার মুঠো ফোনে ফোন করে পাওয়া যায়নি। উজ্জলের বাবাকে বাড়ীতে পাওয়া না গেলেও তার চাচা শাহাবাজপুর আউলাই দাখিল মাদ্রাসার সহকারি সুপারেন্টেড মাওলানা ফজলুল হক জানান, বিষয়টি শুনে রাতে এবং সকালে মিমাংসা চেষ্টা করেছি। কিন্তু ভাতিজা উজ্জল পলাতক থাকায় মিমাংসা করা সম্ভব হয়নি। তার স্ত্রী জানান উজ্জল কাল থেকে বাড়ীতে নেই। আগেও এ রকম অভিযোগ ওঠেছিল তার স্বামীর বিরোদ্ধে। এ ঘটনায় পশ্চিম রণরামপুর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকাবাসীর এ ঘটনার সঠিক বিচারের দাবী করেন।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!