ঢাকা   শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  সুনামগঞ্জে শিশু তুহিন হত্যা: বাবার পক্ষে লড়বেন না কোনো আইনজীবী (আইন ও বিচার)        যেখানে দুর্নীতি-টেন্ডারবাজি, সেখানেই অভিযান: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        সড়কে দুর্ঘটনা এাড়তে সবাইকে সচেতন হবার আহবান প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)        বাংলাদেশের কৃষি এখন বিশ্বের অন্যতম রোল মডেলু: খাদ্যমন্ত্রী (জাতীয়)        প্রচুর অন্যায় এদেশে গেড়ে বসে আছে: পরিকল্পনামন্ত্রী (জাতীয়)        জামালপুরে ঘুষের টাকাসহ হাসপাতাল কর্মচারী আটক (জেলার খবর)        আজারবাইজানের ন্যাম সম্মেলনে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী (জাতীয়)        সংবাদকর্মীদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস তথ্য প্রতিমন্ত্রীর (জাতীয়)        আবরার হত্যা নিয়ে বিএনপির নোংরা রাজনীতি পরিহার করা উচিত: হানিফ (রাজনীতি)        জামালপুরে শিশু নির্যাতন সম্পর্কে স্বভাব নেতাদের সাথে কর্মশালা (জামালপুরের খবর)      

ভারতকে অনেক দিয়েছেন, আর দেয়ার কিছু নাই: প্রধানমন্ত্রীকে মোশাররফ

Logo Missing
প্রকাশিত: 01:55:16 pm, 2019-10-03 |  দেখা হয়েছে: 6 বার।

ঢাকা ডেক্স:

ভারত সফরে জাতীয় স্বার্থ পরিপন্থী কোনো কিছু না করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন। গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাল ভারতে যাচ্ছেন। আজকে শুধু আমি এতটুকুই বলতে চাই, বাংলাদেশের স্বার্থবিরোধী, জনগণের স্বার্থবিরোধী এমন কোনো কথা, এমন কোনো কাজ আপনি করে আসবেন না, যেমনটা আপনি বলেছেন, আপনি ভারতকে অনেক দিয়েছেন, আর দেয়ার কিছু নাই। এবার আপনি এমন কিছু করবেন না যাতে জাতীয় স্বার্থ ব্যহত হয়, এমন কিছু করবেন না যাতে করে এই উপমহাদেশে আবার একটা অশান্তির আগুন জ্বলে উঠে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে ৩-৬ অক্টোবর দেশিটিতে রাষ্ট্রীয় সফর করবেন শেখ হাসিনা। এই সফরে দুই দেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে বলে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। শেখ হাসিনা ভারতের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের পাশাপাশি ৫ অক্টোবর নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। তাছাড়া আগামি ৩-৪ অক্টোবর ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম আয়োজিত ইন্ডিয়ান ইকোনোমিক সামিটে ‘প্রধান অতিথি’ থাকবেন তিনি।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, আমরা এখান থেকে সাবধান করতে চাই- আপনি যাচ্ছেন ভালো কথা। কিন্তু বাংলাদেশের স্বার্থহানি হয়, বাংলাদেশের জনগণের স্বার্থহানি হয়, আমাদের দেশের জনগণের কোনো রকমের ক্ষতি হয়- ভারতের এই ধরনের কোনো প্রস্তাবে আপনি রাজি হবেন না। আর হলে কিন্তু এদেশের মানুষ সব কিছু দেখছে। এতদিন যা করেছেন লুকিয়ে রাখতে পারছেন না। আজকে এর কিছুকিছু প্রকাশ ঘটছে। যেগুলো প্রকাশ হয়নি, তারও প্রকাশ ঘটবে।

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা এবং খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে খন্দকার মোশাররফ বলেন, খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। যে মামলায় জামিন হওয়ার কথা, সে মামলায় তাকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে। বেগম জিয়া কোনো দুর্নীতির দায়ে কারারুদ্ধ হননি। তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করতেই খালেদা জিয়াকে আটকে রেখেছে।

সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের সব প্রতিষ্ঠান পরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রের দিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে এই সরকার। আজ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ মিলে সব সরকারি প্রতিষ্ঠান দখল করে ফেলেছে। এমনকি হাইকোর্টেও তারা দলীয়করণ করেছে। আজ সবখানেই লুটপাটের রাজনীতি চলছে। বিএনপি নেতা বলেন, ব্যাংকগুলো দেওলিয়া হয়ে যাচ্ছে। যারা আওয়ামী লীগ করে, তারা অবৈধ পথে বাণিজ্য করে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। সরকারের কাছে দেশ পরিচালনার টাকা নেই। সরকার পরিচালনার জন্য বিভিন্ন স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন ব্যাংক থেকে টাকা নেওয়া হচ্ছে। এমনকি টোল আদায়ের মাধ্যমে টাকা আদায় করছে সরকার। তিনি বলেন, আমাদের পাট শিল্পকে ধ্বংস করা হয়েছে, টেক্সটাইল শিল্পকে ধ্বংস করা হয়েছে। দেশের চামড়া শিল্পকেও ধ্বংস করেছে এই সরকার।

চলমান অভিযান সম্পর্কে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্বীকার করেছেন, তিনি বাধ্য হয়ে দুর্নীতি, মাদক ও ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান পরিচালনা করছেন। আসলে তিনি এ অভিযান শুরু করেছেন যেন, ওয়ান ইলেভেন সৃষ্টি না হয় সেজন্য। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের উদ্যোগে এই মানববন্ধন হয়। মানববন্ধনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, কেন্দ্রীয় নেতা আবুল কালাম আজাদ, কাদের গনি চৌধুরী, শহীদুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।