ঢাকা   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  ১০ ডিসেম্বর : জামালপুর হানাদার মুক্ত দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষের সমাপনী সভা (জামালপুরের খবর)        মাদারগঞ্জ আন্তর্জাতিক দূর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে জাতীয় ভ্যাট দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে মানবাধিকার দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        শ্রীবরদীতে অষ্টকালীন লীলা কীর্তন অনুষ্ঠিত (জামালপুরের খবর)        লটারির মাধ্যমে ধান বিক্রির সুযোগ পেয়েছে কৃষকরা (জামালপুরের খবর)        জঙ্গিবাদ বিরোধী অলআউট প্রচেষ্টায় অনেকটাই সফল হয়েছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জাতীয়)        আমাদের মানবাধিকার হরণ করা হয়েছে: ফখরুল (রাজনীতি)        ১৬ ডিসেম্বর থেকে রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠানে জয় বাংলা বলতে হবে: হাইকোর্ট (জাতীয়)      

নূর হোসেনকে নিয়ে কটূক্তির জন্য রাঙ্গাঁর দুঃখপ্রকাশ

Logo Missing
প্রকাশিত: 12:45:30 am, 2019-11-14 |  দেখা হয়েছে: 7 বার।

আ.জা. ডেক্স:

হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের স্বৈরশাসনবিরোধী গণআন্দোলনের শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে করা কটূক্তি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন প্রয়াত এ সেনাশাসকের গড়ে তোলা দল জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ। ’অনুতপ্ত’ রাঙ্গাঁ গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে নূর হোসেনের পরিবারের কাছে দুঃখপ্রকাশ করেন।

গত ১০ নভেম্বর জাতীয় পার্টির গণতন্ত্র দিবসের (শহীদ নূর হোসেন দিবস) আয়োজনে তিনি নব্বইয়ের গণআন্দোলনে শহীদ নূর হোসেনকে ‘মাদকাসক্ত’ আখ্যা দেন। পরে এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে উঠে সমালোচনার ঝড়। নূর হোসেনের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা রাঙ্গাঁর বিরুদ্ধে মামলা করতেও প্রস্তুত। এ বিষয়ে এরশাদের ভাগিনা রাঙ্গাঁ বলেন, গত ১০ নভেম্বর তারিখে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানীস্থ কার্যালয়ের মিলনায়তনে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ঘরোয়াভাবে আয়োজিত গণতন্ত্র দিবসের আলোচনা সভায় আমার কিছু বক্তব্য নিয়ে কোনো কোনো মহল এবং বিশেষ করে নূর হোসেনের পরিবারের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। প্রতি বছর নূর হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে কয়েকটি সংগঠনের আলোচনা, বক্তব্য ও বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা এরশাদকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয় বলে অভিযোগ করেন জাপা মহাসচিব। তিনি বলেন, এমনকি তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালিও করা হয়। এর ফলে জাতীয় পার্টির কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সেই প্রেক্ষিতে কর্মীদের উত্তেজনার মধ্যে বক্তব্য প্রদানকালে অনিচ্ছাকৃতভাবে আমার মুখ থেকে নূর হোসেন সম্পর্কে কিছু অযাচিত কথা বেরিয়ে গেছে, যা নূর হোসেনের পরিবারের সদস্যদের মনে আঘাত করেছে। এর জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত ও অনুতপ্ত।

নূর হোসেনের মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে তিনি বলেন, নূর হোসেনের পরিবারের প্রতি আমাদের প্রয়াত চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু এরশাদও সমব্যথী ছিলেন। অতএব অসতর্কভাবে বলে ফেলা আমার বক্তব্যে যে আঘাত লেগেছে. তার জন্য আমি নূর হোসেনের মায়ের কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করছি। রাঙ্গাঁ বলেন, তার যে বক্তব্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে, সেসব বক্তব্য ‘প্রত্যাহার’ করে নিচ্ছেন তিনি। আমি আশা করি, এই বিষয়ে আর কোনো ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ থাকবে না।