ঢাকা   বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  সদর উপজেলাবাসীর আশার আলো উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদা ইয়াছমিন (জামালপুরের খবর)        বকশিগঞ্জ উপজেলায় স্থানীয় সরকার ও প্রশাসনের সাথে জনতার সংলাপ (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে বিতর্ক প্রতিযোগিতা (জামালপুরের খবর)        খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করছেনা সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (জামালপুরের খবর)        বাল্যবিবাহ মুক্ত ময়মনসিংহ বিভাগ ঘোষণা করায় ইসলামপুরে র‌্যালি ও মানববন্ধন (জামালপুরের খবর)        দেওয়ানগঞ্জে জাতীর পিতার জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে র‌্যালি, মানববন্ধন, গন স্বাক্ষর ও শপথ গ্রহন (জামালপুরের খবর)        কুষ্ঠ রোগীদের ওষুধ তৈরী ও বিনামূল্যে বিতরণে স্থানীয় কোম্পানীগুলোর প্রতি আহবান প্রধানমন্ত্রীর (জাতীয়)        খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আসল রিপোর্ট বদলে ফেলা হচ্ছে: ফখরুল (রাজনীতি)        অভিযোগ প্রমাণে শাজাহান খানকে ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ইলিয়াস কাঞ্চনের (ঢাকা)        আওয়ামী লীগে কোনও দূষিত রক্ত থাকবে না: ওবায়দুল কাদের (রাজনীতি)      

নদী বাঁচাতে অপূর্ব এক আত্মদানের কথা

Logo Missing
প্রকাশিত: 09:22:53 am, 2018-10-15 |  দেখা হয়েছে: 6 বার।

নদী বাঁচাতে জীবন দিলেন তিনি। জন্ম হলো এক মর্মান্তিক বিয়োগগাথার, শ্রদ্ধায় অবনত হলো মস্তক। ভারতের গঙ্গা নদীকে দূষণ থেকে বাঁচাতে চেয়েছিলেন তিনি। করেছিলেন ১০৯ দিন অনশন। সরকার তাঁর কথা শোনেনি। অনশনরত অবস্থাতেই ভারতের হরিদ্বারে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি। গঙ্গাকে বাঁচাতে বহু লড়াই করে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করা এই মানুষটির নাম জি ডি আগরওয়াল। গত ২২ জুন থেকে হরিদ্বারে অনশনরত ছিলেন তিনি। সরকার আবেদন শোনেনি, তিনিও ছাড়লেন এই নিষ্ঠুর পৃথিবীর মায়া।

জি ডি আগরওয়াল স্বামী জ্ঞানস্বরূপ সানাদ নামেও পরিচিত ছিলেন। পরিবেশকর্মী জি ডি আগ্রবাল ১০৯ দিন অনশনরত ছিলেন। গত বুধবার উত্তরাখন্ড পুলিশ তাঁকে জোর করে হাসপাতালে ভর্তি করে। আইআইটি কানপুরের প্রফেসর ছিলেন জি ডি আগরওয়াল। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের সদস্যও ছিলেন তিনি। ২০১৪ সালে কাঠমান্ডুতে জি ডির সঙ্গে শেষ দেখা। দক্ষিণ এশিয়ার পরিবেশ জলবায়ু উন্নয়ন প্রাকৃতিক সম্পদের ন্যায্য ব্যবহার ইত্যাদি নিয়ে এক বিশাল বাহাসে তাঁকে নিয়ে আসা হয়েছিল। নাম-পরিচয়ে তিনি ছিলেন স্বামী জ্ঞানস্বরূপ সানন্দ। দক্ষিণ এশিয়ার নানা দেশ থেকে আসা, এমনকি ভারতের তরুণ পরিবেশকর্মীদের অনেকেই তাঁকে ধর্মগুরু কিছিমের লোক মনে করেছিলেন। ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (আইআইটি) সাবেক অধ্যাপক ও ভারতের কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের একসময়ের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সদস্য (মেম্বার সেক্রেটারি) জি ডি আগরওয়াল দাড়ি আর গেরুয়া পোশাকে হারিয়ে যাননি কখনো।

সেবার কাঠমান্ডু আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে ভারতের ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচন নিয়ে সবাই আশঙ্কা ব্যক্ত করছিলেন। গেরুয়াবসনা জেডিরও শঙ্কা অব্যক্ত থাকেনি। তবে তিনি বরাবরই নরেন্দ্র দামোদর দাস মোদিকে ভাই বলেই উল্লেখ করছিলেন। ধর্মের লেবাস পরা বেনিয়ারা যে দিকে দিকে রাষ্ট্রক্ষমতা কবজা করছে, তাতে তাঁর কোনো সন্দেহ ছিল না। তবে বিজেপি-মনোনীত মোদির প্রতি একটু যেন ভরসার গন্ধ ছিল তাঁর কথাবার্তায়। দামোদর একটা নদীর নাম, নদীর নামের মানুষ নদীকে অন্য চোখে দেখবে, ব্যবসার চোখে দেখবে না—এই আবেগপ্রবণ ব্যাখ্যা বা বিশ্বাস কি তাঁর ছিল?