ঢাকা   রবিবার ২৫ অগাস্ট ২০১৯ | ১০ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  অবসরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া (বিবিধ)        খুলনা রেলওয়ে থানায় নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ, তদন্তে কমিটি (খুলনা)        গাজীপুরে মশার ২৫ টন ওষুধ আমদানি করা হয়েছে: মেয়র জাহাঙ্গীর (জেলার খবর)        ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে দুই হাজারের বেশি ডেঙ্গু রোগী (জাতীয়)        কুষ্টিয়ায় মাদক মামলায় একজনের যাবজ্জীবন (জেলার খবর)        ফের হাইকোর্ট ওসি মোয়াজ্জেমের জামিন আবেদন (আইন ও বিচার)        আগামী বছর থেকে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে: কৃষিমন্ত্রী (কৃষি ও প্রকৃতি)        দেশের সব ক্ষেত্রে সমন্বিত উন্নয়ন হচ্ছে: শিল্পমন্ত্রী (জাতীয়)        দুর্নীতির মামলায় নোয়াখালী জেলা জজ আদালতের নাজির গ্রেফতার (জেলার খবর)        খালেদার ২ মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানি ১ সেপ্টেম্বর (আইন ও বিচার)      

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষসহ ৩ শিক্ষক বরখাস্ত, এমপিও বাতিল

Logo Missing
প্রকাশিত: 07:14:21 pm, 2018-12-05 |  দেখা হয়েছে: 4 বার।

আজ ডেক্সঃ ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় ঢাকার নামি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করতে বলেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওই তিন শিক্ষকের এমপিও বাতিলের পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করাসহ আইনগত ববস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ছাড়া বাকি দুজন হলেন- বেইলি রোড শাখার সহকারী প্রধান শিক্ষক জিনাত আরা এবং ক্লাস টিচার হাসনা হেনা। অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে যে মামলা করেছেন, তাতেও ওই তিনজনকে আসামি করা হয়েছে। নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় টানা দুদিন ধরে বেইলি রোডের স্কুল ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মধ্যে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল নাহিদ। তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় ‘প্ররোচনার প্রমাণ’ পেয়েছে। ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত: এদিকে, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের সব শাখার ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। গতকাল বুধবার অধ্যক্ষ্যের পক্ষে শিক্ষক মুশতারি সুলতানা সাংবাদিকদের বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রথম থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত সকল শ্রেণির ক্লাস-পরীক্ষা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত থাকবে। এটা সব শাখার জন্য সিদ্ধান্ত। পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হলে শিক্ষার্থীদের এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেব। গত মঙ্গল ও গতকাল বুধবার পরীক্ষা হলেও গতকাল বুধবার কোনো ক্লাস হয়নি বলে জানা গেছে। গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি মুশতারি পদত্যাগের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি প্রসঙ্গে বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি করেছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে যে কারোর বিরুদ্ধে তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে। পরবর্তী যে কোনো সিদ্ধান্তের বিষয়ে যেকোনো সময় গভর্নিং বডি বসতে পারে। সামনে জাতীয় নির্বাচন, এই অবস্থায় পরীক্ষা কিভাবে শেষ হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অতীতেও আমরা বিভিন্ন অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সময় শুক্রবারে ক্লাস-পরীক্ষা নিয়েছি। এবারও সেরকম হতে পারে। মেয়েরা হয়তো প্রস্তুতি নিতে পারেনি- পরীক্ষা পেছানোর জন্য এটিকেও একটি কারণ হিসেবে দাবি করেন তিনি। শিক্ষার্থী-অভিভাকদের বিক্ষোভের মধ্যে গতকাল বুধবার প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত এবং তাদের এমপিও বাতিলের সিদ্ধান্ত আসে শিক্ষামন্ত্রীর কাছ থেকে। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেন তিনি। এদিকে গতকাল বুধবার দ্বিতীয় দিনের মত স্কুলের সামনে সকাল থেকে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা সামনে নিয়ে বিক্ষোভ দেখান। তবে সেখানে অভিভাকদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। স্কুলের ভেতরে অবস্থান নেওয়া একদল অভিভাবক বলছেন, শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তি তৈরি করা হচ্ছে। ওই সময় শিক্ষকদের পক্ষে মুশতারি সুলতানা বলেন, পুরো বিষয় আদালতে চলে গেছে, সিদ্ধান্ত আদালত নেবে। বেলা সাড়ে ১২টার দিকে শিক্ষকরা বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার আহ্বান জানালেও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলে অধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবি করে। অধ্যক্ষকে বরখাস্ত করার বিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের আনষ্ঠানিক ঘোষণাসহ ছয় দফা দাবি তুলে সেসব মেনে না নেওয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার পর দুপুর পৌনে ২টার দিকে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা আসে। শিক্ষার্থীদের পক্ষে আনুশকা রায় সাংবাদিকদের বলেন, আমরা শুনেছি, আমাদের কিছু দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। আমরা আমাদের অধ্যক্ষ বা মুখপাত্রের পক্ষ থেকে এ-সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা চাই। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আমাদের অবস্থান চলতে থাকব। শিক্ষার্থীদের ছয় দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসকে বরখাস্ত ও আত্মহত্যার প্ররোচনার কারণে ৩০৫ ধারায় তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া; শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন না করার নিশ্চয়তা; কথায় কথায় শিক্ষার্থীদের ট্রান্সফার সার্টিফিকেট দেওয়া ও দেওয়ার হুমকি বন্ধ করা; শিক্ষার্থীদের মানসিক সুস্থতার জন্য প্রত্যেক ক্লাসে মনোবিদের ব্যবস্থা রাখা; গভর্নিং বডির প্রত্যেক সদস্যের পদত্যাগ এবং আন্দোলনকারী কারো বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেওয়া। গত সোমবার শান্তিনগরে নিজের বাসায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, আগেরদিন রোববার অরিত্রী পরীক্ষায় মোবাইল ফোনে নকল নিয়ে টেবিলে রেখে লিখছিল। অন্যদিকে স্বজনদের দাবি, নকল করেনি অরিত্রী। এরপর সোমবার অরিত্রীর বাবা-মাকে ডেকে নেওয়া হয় স্কুলে। তখন অরিত্রীর সামনে তার বাবা-মাকে অপমাণ করা হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। অরিত্রীর স্বজনরা বলছেন, বাবা-মার ‘অপমান সইতে না পেরে’ ঘরে ফিরে আত্মহত্যা করেন এই কিশোরী। তবে অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস শিক্ষার্থী অরিত্রীর অভিভাবকদের অপমান করার কথা অস্বীকার করেছেন। মেয়ের মৃত্যুর ঘটনায় বরখাস্ত ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনার’ অভিযোগে মামলা করেছেন অরিত্রীর বাবা।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!