ঢাকা   মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

  জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে মিটার-রিডার ও ম্যাসেঞ্জার ঐক্য পরিষদের কর্মবিরতি (জামালপুরের খবর)        নকলায় নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণে মানববন্ধন (জামালপুরের খবর)        বকশীগঞ্জ উপজেলায় জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে র‌্যালি (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে এনএসভিসি প্রকল্পের শিখন বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে জাতীয়তাবাদী শ্রমিকদলের মানববন্ধন (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        জামালপুরে সা’দ পন্থীদের ইজতেমা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ, মিছিল (জামালপুরের খবর)        শেরপুরে নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত (জামালপুরের খবর)        ঝিনাইগাতীতে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন (জামালপুরের খবর)      

গাড়ির ফিটনেস ও কাগজপত্র না থাকায় ঢাকার রাস্তায় প্রতিদিন গড়ে ৬ হাজার মামলা

Logo Missing
প্রকাশিত: 09:54:47 pm, 2018-09-20 |  দেখা হয়েছে: 1 বার।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ঘোষিত ট্রাফিক মাসে বিশেষ অভিযান চলছে ঢাকার রাস্তায়। ট্রাফিক আইন না মানা, গাড়ির ফিটনেস ও কাগজপত্র না থাকায় প্রতিদিন গড়ে ছয় হাজারের ওপরে মামলা করছেন ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা। গড়ে প্রতিদিন জরিমানা করা হচ্ছে ৫০ লাখ টাকার ওপরে। ডিএমপির মিডিয়া সেন্টার সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। চলতি সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে সংবাদ সম্মেলন করে ঢাকায় ট্রাফিক মাস ঘোষণা করেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তখন তিনি জানিয়েছিলেন, ট্রাফিক আইন অমান্য করলে কোনো প্রভাবশালীকেই ছাড় দেওয়া হবে না। এর পরই শুরু হয় বিশেষ অভিযান। ডিএমপির উপকমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান জানান, গত তিন দিনে বিশেষ অভিযানে মামলা হয়েছে প্রায় ১৮ হাজার। আর জরিমানা করা হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকা। মঙ্গলবার অভিযানকালে ৫৭ লাখ ৭৮ হাজার ৭৫০ টাকা জরিমানাসহ ছয় হাজার ১৯৮টি মামলা করেছে ট্রাফিক বিভাগ। ডাম্পিং করা হয়েছে ৭২টি গাড়ি আর রেকার করা হয়েছে ৯৯৯টি। ট্রাফিক আইন ভঙ্গের কারণে দুই হাজার ১৬১টি মোটরবাইকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর আটক করা হয়েছে ১১০টি মোটরসাইকেল। হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহারের দায়ে ১২৬টি, হুটার বা বিকনলাইট ব্যবহারের জন্য ১২টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ট্রাফিক বিভাগ। মাইক্রোবাসে কালো গ্লাস লাগানোর জন্য ২২টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল বা এয়ারফোন ব্যবহার করার জন্য ৩০ জন ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এদিকে উল্টো পথে গাড়ি চালানোর অপরাধে ৪৮৬টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এর আগে সোমবার দিনভর অভিযানের তথ্যে জানা যায়, এদিন অভিযানকালে ৫২ লাখ ৩৫ হাজার ৫০ টাকা জরিমানাসহ ছয় হাজার ১৯৮টি মামলা করেছে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ। এ সময় ডাম্পিং করা হয়েছে ৩৮টি গাড়ি আর রেকার করা হয়েছে ৯২৬টি। ট্রাফিক আইন ভঙ্গের কারণে দুই হাজার ১৬০টি মোটরবাইকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। করেছে জরিমানাও। আর আটক করা হয়েছে ১১০টি মোটরসাইকেল। হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহারের দায়ে ১০৭টি, হুটার বা বিকনলাইট ব্যবহারের জন্য নয়টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ট্রাফিক বিভাগ। পুলিশ স্টিকার লাগানোর জন্য দুটি গাড়ি, মাইক্রোবাসে কালো গ্লাস লাগানোর জন্য ২০টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল বা এয়ারফোন ব্যবহার করার জন্য ৩০ জন ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এদিকে উল্টো পথে গাড়ি চালানোর অপরাধে ৩৯৬টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। গত রোববার ট্রাফিক আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে অভিযানকালে ৩১ লাখ ৯৩ হাজার ৯০০ টাকা জরিমানা আদায়সহ পাঁচ হাজার ১১৭টি মামলা করেছে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ। এ সময় ট্রাফিক অভিযানে ডাম্পিং করা হয়েছে ৪২টি গাড়ি আর রেকার করা হয়েছে ৮৯৩টি। ট্রাফিক বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ব্যস্ততম রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ট্রাফিক আইন ভঙ্গের কারণে রোববার এক হাজার ৮৩১টি মোটরবাইকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় ট্রাফিক পুলিশ। করেছে জরিমানাও। আর আটক করা হয়েছে ১০৮টি মোটরসাইকেল। হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহারের দায়ে ৯২টি, হুটার বা বিকনলাইট ব্যবহারের জন্য চারটি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ট্রাফিক বিভাগ। ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে পুলিশ স্টিকার লাগানোর জন্য দুটি গাড়ি, মাইক্রোবাসে কালো গ্লাস লাগানোর জন্য ২৩টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল বা এয়ারফোন ব্যবহার করার জন্য ২৫ জন ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এর মধ্যে একটি ভিডিও মামলা ও ২৪টি সরাসরি মামলা করা হয়েছে। উল্টো পথে গাড়ি চালানোর অপরাধে ৩৭৯টি গাড়ির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল করিম বলেন, ঢাকা মহানগরীতে ট্রাফিক শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতেই ট্রাফিক সপ্তাহ শেষে ট্রাফিক মাস ঘোষণা করা হয়। পুরো সেপ্টেম্বর মাসজুড়েই চলবে এই বিশেষ অভিযান। অভিযানে আইন অমান্যকারী কাউকেই ছাড় দেওয়া হচ্ছে না। এরইমধ্যে অধিকাংশ মানুষ আইন মানতে শুরু করেছেন বলেও মনে করেন তিনি।