Sunday, September 19, 2021
Home জামালপুর আশ্রিতাদের মুখে মলিণ হাসি

আশ্রিতাদের মুখে মলিণ হাসি

মোহাম্মদ আলী:

আজকের রমরপাড়ার আশ্রিতদের ছিল ভাসমান বসতি। শেষ আশ্রয় ছিল ইউনিয়ন পরিষদের ভবনের সামনে। সেখান থেকে ঠাঁয় হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্রে। এখানে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া পাকা ঘর পেয়ে এখন তাদের মুখে ফুটেছে হাসি। কিন্তু, সেই হাসি মলিণ! কারণ তাদের যাতায়াতের রাস্তা নেই। সোমবার, জেলার মেলান্দহ উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের রমর পাড়া আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে বসবাসরত আশ্রিত অনুভূতি বা প্রতিক্রিয়া জানতে গেলে তারা এমন অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন।

জানা যায়, এ বছরের প্রথম দিকে মেলান্দহ উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের রমরপাড়ায় ইউনিয়নের ক্ষুদ্র-নৃ গোষ্ঠীর ৯ পরিবারের জন্য একটি আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে তার ৫টিতে বসবাস শুরু দিয়েছে আশ্রিতরা। আর বাকী ঘরগুলো নিমাণাধীন।

ওমরপাড়া আশ্রয়ণকেন্দ্রে বসকারীদের একজন বিজয় পিতা সুদেপ বলেন, আমরা আগে ভাসমান বসবাস করতাম। আমাদের স্বর্বশেষ ঠিকানা হয়েছিল ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের সামনে। সেখানে থেকে তুলে এনে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের পাঁকা ঘরে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে। এজন্য আমরা আনন্দিত খুশি। এখন আমাদের নিজেদের একটি ঘর হয়েছে, নিজেদের একটি ঠিকানা হয়েছে। কিন্ত, আমাদের যাতায়াতের রাস্তা নেই। আমাদের কর্মস্থলে ও হাট বাজারের যাওয়া আসা দুষ্কর হয়ে পড়েছে। কারণ আশ্রয়ণ প্রকল্পটির চারপাশে স্থানীয়দের রেকর্ডকৃত মালিকানাধীন ভোগ দখলীয় আবাদী জমি। যেখানে তারা সারা বছর চাষবাস করে। আমরা তাদের ক্ষেতের আঁইল বাড়ির আঙ্গিনা দিয়ে যাতায়াত করলেও তারা বারণ করেন বিরক্ত হন। এমতবস্থায় এ আশ্রয়কেন্দ্রে বসবাসকারীদের জন্য একটি রাস্তা হলে আমাদের এ সুখ দুঃখে পরিণত হবে। আরেক আশ্রিতা নিরালা বলেন, আমাদের এ আশ্রয়কেন্দ্রে এখনও সুপেয় পানির ব্যবস্থা হয়নি। আমরা নিজেরা টাকা তুলে একটি টিউবওয়েল দিয়েছি। সেখানেই গোসল করি, সেখানকার পানিই পান করি।

আশ্রয়ণকেন্দ্রের জন্য নির্মাণ সামগ্রী বহনকারী ঘোড়ার গাড়ীর চালক সোলায়মান হোসেন বলেন, রমরপাড়ার যেখানে আশ্রয়ণকেন্দ্রটি নিমার্ণ করা হয়েছে এটি লোকালয়ের বাইরে। এটি একটি বন্দের ভিতর। তাই, এখান পর্যন্ত কোনো রাস্তা আসেনি। যার কারণে আশ্রয়ণকেন্দ্রের নির্মাণ সামগ্রীগুলো আমাদেরকে প্রধান সড়ক থেকে ক্ষেতের মধ্যে দিয়ে হাটু পরিমাণ কাদা ভেঙ্গে প্রকল্প এলাকায় পৌছাতে হচ্ছে।
এ ব্যাপারে কুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান, আব্দুছ ছালাম বলেন, রমরপাড়া আশ্রয়ণকেন্দ্রে রাস্তা হবে। ইতিমধ্যে বিষয়টি আমি উপজেলা প্রসাশনকে জানিয়েছি। চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

ময়মনসিংহে লোডশেডিং দেড়শ’ মেগাওয়াট : নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে মতবিনিময়

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ : দীর্ঘদিন পর লকডাউন তুলে নেয়ার পর ময়মনসিংহের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা হলেও প্রতিদিন অসংখ্য বার...

ডিজিটালাইজেশনের বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে সচেতনতার অভাব: মোস্তাফা জব্বার

ময়মনসিংহ ব্যুরো : ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটালাইজেশনের বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে সচেতনতার অভাব।জনগণকে ডিজিটাল প্রযুক্তির...

সরিষাবাড়ীতে নিখাই গ্রামে গণপাঠাগার উদ্বোধন

আসমাউল আসিফ: জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে ‘মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, গ্রামে গ্রামে পাঠাগার’ এই শ্লোগানে সুর সম্রাট আব্বাস উদ্দিনের স্মৃতি বিজড়িত নিখাই...

সংক্রমন বেড়ে গেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হবে: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি

আসমাউল আসিফ: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি এমপি বলেছেন, গত বছরের মার্চ মাস থেকে করোনা সংক্রমনের কারনে পাঠদান বন্ধ ছিল,...

Recent Comments