Friday, February 3, 2023
Homeজামালপুরইসলামপুর বাজারের ব্যবসায়ী মুনুুর বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের জমি বেদখলের অভিযোগ

ইসলামপুর বাজারের ব্যবসায়ী মুনুুর বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের জমি বেদখলের অভিযোগ

ওসমান হারুনী: জামালপুরের ইসলামপুর বাজারের ব্যবসায়ী মুনু গংরা প্রতিবেশীর কাছে জমি বায়নাপত্র করেই প্রতারণার মাধ্যমে নিজের নামে খারিজ করে নিয়ে প্রতিপক্ষের জমি জবর দখল করে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে ভোক্তভোগী পরিবার মজিবুর রহমান ইসলামপুর থানাসহ বিভিন্ন দপ্তরের ন্যায় বিচার পেতে অভিযোগ দায়ের করেছেন।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ইসলামপুর পৌর শহরের ২নং ওয়ার্ডের কিসমত জাল্লা গ্রামের শহিদুর রহমানের ছেলে শাহীন(৪৩)তার নিজ নামে সোয়া ছয় শতাংশ জমি প্রতিবেশী মরহুম আবু তাহেরের ছেলে নুরুজ্জামান ও মুনুর নিকট বিক্রি করার জন্য দরদাম ঠিক করে ১লাখ ৬০হাজার টাকা বায়নাপত্র করে। বায়নাপত্র করার পরে নুরুজ্জামান ও মুনু কৌশলে তাদের পূর্বের ক্রয়করা ১০শতাংশ জমির সাথে নতুন বায়নাপত্র করা শাহীনের উক্ত জমি ভূমি অফিসকে মোটা অংকের টাকায় ম্যানেজ করে তাদের নামে নামজারী/জমাখারিজ করে নেয় এবং এই তথ্য গোপন রাখে। কিছুদিন পর শাহীন বায়না চুক্তিপত্র মোতাবেক জমির বাকী টাকা চাইতে গেলে শাহীনকে তার জমি খারিজ করার কথা বলে বায়না চুক্তিবদ্ধ বাকী টাকা না দেওয়ার তালবাহানা করে। এ কথা শুনে জমির মালিক শাহীন ভূমি অফিসে জমি খারিজ করতে যায়। খারিজ করতে গিয়ে দেখে তার জমি আগেই বায়নাপত্রকারী ক্রেতা নুরুজ্জামান প্রতারণা করে কৌশলে তাদের নামে খারিজ করে নিয়েছে। এই ঘটনা জানতে পেরে শাহীন তার সহোদর বোন সাহানা বেগমের নিকট হেবা ঘোষণা দলিলমূলে উক্ত জমি হস্তান্তর করে। এব্যাপারে হেবা ঘোষণামূলে প্রাপ্ত জমির মালিক সাহানা জমির নামজারী/খারিজ তার নামে করার জন্য ইসলামপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) কার্যালয়ে মিস কেইস করেছেন। এ খবর পেয়ে অন্যের জমি নিজের নামে খারিজ করা প্রতারণাকারী নুরুজ্জমান গংরা বায়নার জমি না পেয়ে আদালতে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে শাহীনের বিরুদ্ধে একটি হয়রানী মূলক মোকদ্দমা দায়েরসহ সাহানাকে নানান হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে।
ভোক্তভোগী সাহানা বেগম কোন উপায় না পেয়ে তার জমি উদ্ধারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারে বিভিন্ন দপ্তরের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছাড়াও সাহানার স্বামী মজিবুর রহমান বাদী হয়ে গতকাল ২৭ডিসেম্বর মঙ্গলবার ইসলামপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এব্যাপারে অভিযোক্ত জবরদখলকারী মুনু গংদের সাথে কথা হলে উপরোক্ত অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি সাংবাদিদকের জানান, যে জমি ক্রয়ের জন্য বায়ানাপত্র করেছিলাম সেই জমির কোন অস্তিত নেই বলে জানান।
এব্যাপারে ভোক্তভোগী জমির মালিক সাহানা বেগম জানান,‘আমার ভাইয়ের দেওয়া হেবা দলিল মূলে প্রাপ্ত সোয়া ছয় শতাংশ আমার বৈধ সম্পত্তি বিবাদী নুরুজ্জামান গংরা বাহুবলে ক্ষমতা দিয়ে জোরপূর্বক ভাবে দখল করে আসছে। আমি উক্ত জমিতে যেতে পারছি না। আমি আমার জমি উদ্ধারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments