Monday, June 14, 2021
Home জাতীয় দীর্ঘদিন ধরেই জ্বালানি তেল বিপণন কোম্পানিগুলো ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছে

দীর্ঘদিন ধরেই জ্বালানি তেল বিপণন কোম্পানিগুলো ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছে

আ.জা.ডেক্সঃ

রাষ্ট্রায়ত্ত তিন জ্বালানি তেল বিপণন কোম্পানি দীর্ঘদিন ধরেই ভ্যাট ফাঁকি দিচ্ছে। ওই প্রতিষ্ঠানগুলো গত ৫ বছরে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) নিয়ন্ত্রিত ওই তিনটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে পদ্মা অয়েল কোম্পানি, মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড ও যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড। ভ্যাট ফাঁকির ঘটনায় চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট ইতোমধ্যে ওই তিন সংস্থার প্রতি শোকজ নোটিস জারি করেছে। তাছাড়া আরো দুটি প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট ফাঁকির তথ্য উদ্ঘাটিত হয়েছে। ওসব প্রতিষ্ঠানকেও শোকজের প্রক্রিয়া চলছে। চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনারেট সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বিগত ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পদ্মা অয়েলের ভ্যাট ফাঁকির পরিমাণ ১ হাজার ৯৫২ কোটি ৮৫ লাখ ২৫১ টাকা, মেঘনা পেট্রোলিয়ামের ভ্যাট ফাঁকির পরিমাণ ৩১১ কোটি ৯৯ লাখ ৩১ হাজার ৯৯১ টাকা এবং যুমনা অয়েল কোম্পানি ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে ২৫৭ কোটি ৪৭ লাখ ৮৬ হাজার ২৬১ টাকা। গত ২৭ আগস্ট ওই তিন প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শাওর নোটিসে ভ্যাট ফাঁকির সচিত্র প্রতিবেদন সংযুক্ত করা হয়েছে। তাতে উল্লেখ করা হয়- ২০১৫-২০১৯ সাল পর্যন্ত অর্থবছরের প্রতিষ্ঠানসমূহে যাবতীয় ব্যবসায়িক কার্যক্রম এবং কর মেয়াদের দলিলপত্র যাচাই করা হয়েছে। তাতে দেখা যায় মূসক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে।
সূত্র জানায়, পদ্মা অয়েলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে প্রেরিত কারণ দর্শাও নোটিসে বলা হয়, ওই প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আমদানি পর্যায়ে পার্থক্যজনিত অপরিশোধিত মূল্য সংযোজন কর (মূসক) ১ হাজার ৮৭৯ কোটি ৪১ লাখ ৬২ হাজার ৬৪ টাকা। স্থানীয় পর্যায়ে অপরিশোধিত ব্যবসায়িক মূসক ৩০ কোটি ৬৭ লাখ ২১ হাজার ৭২টাকা এবং অপরিশোধিত উৎসে মূসক বাবত ৪২ কোটি ৪৪ লাখ ২১৫ টাকাসহ মোট ১ হাজার ৯৫২ কোটি ৭২ লাখ ৮৫ হাজার ২৫১ টাকা আদায়ের আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণের লক্ষ্যে মূসক আইনে উক্ত পরিমাণ অর্থ আদায়ে দাবিনামা জারি করা হলো। অনুরূপভাবে পদ্মা অয়েল কর্তৃপক্ষকে তাদের প্রতিষ্ঠানে পণ্য আমদানি পর্যায়ে পার্থক্যজনিত অপরিশাধিত মূসক ২৭৫ কোটি ৪০ লাখ ৭৮ হাজার ১৩৫ টাকা এবং অপরিশোধিত উৎসে মূসক বাবত ৩১১ কোটি ৯৯ লাখ ৩১ হাজার ৯৯১ টাকা আদায়ে দাবিনামা জারি করা হয়। আর যমুনা অয়েল কোম্পানি কর ফাঁকির মোট পরিমাণ ২৯৭ কোটি ৪৭ লাখ ৮৬ হাজার ২৬১ টাকা। ওই কোম্পানিকে জারিকৃত পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, তাদের আমদানি পর্যায়ে পার্থক্যজনিত অপরিশোধিত মূসক ১৮২ কোটি ৯১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৩৬ টাকা, স্থানীয় পর্যায়ে অপরিশোধিত ব্যবসায়িক মূসক ৩ কোটি ৭৯ লাখ ৩৬ হাজার ৯০৫ টাকা এবং অপরিশোধিত উৎসে মূসক বাবত ২৩ কোটি ৬৩ লাখ ২০ হাজার ২০৫ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

৬ দফার ভেতরেই নিহিত ছিল স্বাধীনতার এক দফা: প্রধানমন্ত্রী

আ.জা. ডেক্স: ঐতিহাসিক ৬ দফার ভেতরেই স্বাধীনতার এক দফা নিহিত ছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতির...

স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে এসএসসি পরীক্ষা: শিক্ষাবোর্ড

আ.জা. ডেক্স: চলমান করোনাভাইরাসের মহামারী পরিস্থিতিতে সব কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে...

১৩ হাজার ৯৮৭ কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস

আ.জা. ডেক্স: চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ১৩ হাজার ৯৮৭ কোটি ২৭ লাখ ৩২ হাজার টাকার সম্পূরক বাজেট সংসদে...

করোনায় আরও ৩০ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৭০

আ.জা. ডেক্স: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে আরও ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে পুরুষ ১৯...

Recent Comments