Thursday, April 22, 2021
Home জাতীয় নকশা দুর্বলতায় মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে

নকশা দুর্বলতায় মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে

আ. জা. ডেক্স:

নকশা দুর্বলতায় মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে। হাইওয়ে পুলিশের তথ্যানুযায়ী বিগত ১৪ মাসে কেবল যাত্রাবাড়ী-মাওয়া অংশেই ৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। আর ওসব দুর্ঘটনায় ৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে স্থানীয়দের দাবি দুর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা আরো বেশি। এক্সপ্রেসওয়েটি দুর্ঘটনাপ্রবণ হয়ে ওঠার দায় হিসেবে বিশেষজ্ঞরা নকশাগত দুর্বলতার কথা বলছেন। তার মধ্যে ভেতরে বাস-বে রাখা নিয়ে সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হচ্ছে। পাশাপাশি এক্সপ্রেসওয়ের ব্যারিয়ার সঠিকভাবে না বসানো, পর্যাপ্তসংখ্যক পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভারব্রিজ না রাখাকেও দায়ি করা হচ্ছে। হাইওয়ে পুলিশ এবং সড়ক বিশেষজ্ঞদের সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সটেওসওয়ে নির্মাণের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল সহজ ও নিরাপদ যাতায়াত ব্যবস্থা গড়ে তোলা। রসজন্য একমুখী প্রশস্ত সড়ক, ফ্লাইওভার, আন্ডারপাস, ইন্টারচেঞ্জ, ধীরগতির গাড়ির জন্য আলাদা রাস্তা কোনো কিছুরই কমতি রাখা হয়নি। ওসবের জন্য এক্সপ্রেসওয়েতে কিলোমিটারপ্রতি প্রায় ২০০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। কিন্তু সড়কটি চালুর পর যাতায়াত সহজ হলেও নিরাপদ হয়নি। বরং মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের যাত্রাবাড়ী থেকে মাওয়া, সেখান থেকে পদ্মা সেতুর পর ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এক্সপ্রেসওয়েটি গত বছরের মার্চে প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। তবে জানুয়ারির শুরু থেকেই ওই সড়কে গাড়ি চলাচল পুরোদমে শুরু হয়। এখনো পদ্মা সেতু চালু হয়নি। ফেরি পারাপার ছাড়া ওপারে যাওয়ার সুযোগ নেই। তাই এক্সপ্রেসওয়েটির ৩৫ কিলোমিটার দীর্ঘ ঢাকা-মাওয়া অংশই বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে।


সূত্র জানায়, এক্সপ্রেসওয়ের ঢাকা-মাওয়া অংশটি হাইওয়ে পুলিশের গাজীপুর রিজিয়নে পড়েছে। মুন্সীগঞ্জের হাঁসাড়া হাইওয়ে থানা থেকে তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। হাঁসাড়া থানার তথ্যানুযায়ী, ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের ১ মার্চ পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটারের ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে ৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছে। ওসব দুর্ঘটনায় ৬৫ জনের মৃত্যু ও ৬৭ জন আহত হয়েছে। মূলত এক্সপ্রেসওয়েটিতে সবচেয়ে বেশি পথচারী চাপা দেয়ার ঘটনা ঘটছে। তারপর সবচেয়ে বেশি ঘটছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা। তাছাড়াও পেছন থেকে গিয়ে অন্য গাড়ি ধাক্কা, ধীরগতির গাড়িকে দ্রæতগতির গাড়ির ধাক্কা, ওভারটেকিং করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারানো ও বেপরোয়া গতির কারণে দুর্ঘটনা হচ্ছে।
সূত্র আরো জানায়, বিগত ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বরে এক্সপ্রেসওয়েটির নির্মাণ কাজ চলমান থাকা অবস্থায় বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৯ জন নিহত হয়। ওই ঘটনার পর বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে একটি তদন্ত প্রতিবেদন কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেয়। ওই প্রতিবেদনে দুর্ঘটনার জন্য অনেকগুলো কারণ চিহ্নিত করা হয়। তার একটি কারণ ছিল সড়ক বিভাজকের ব্যারিয়ার সঠিকভাবে স্থাপন না করা। এক্সপ্রেসওয়েটির যে জায়গায় সড়ক বিভাজকের কংক্রিটের অংশ রয়েছে, তার চেয়ে ১০ ইঞ্চি পেছনে স্টিলের ব্যারিয়ার স্থাপন করা হয়েছে। ফলে গাড়ি চালানোর সময় স্টিলের ব্যারিয়ার আর কংক্রিটের বিভাজকের ওই ১০ ইঞ্চি পার্থক্য সব সময় চালকের পক্ষে লক্ষ্য করা সম্ভব নয়। তাতে দুর্ঘটনার ঝুঁকি বেড়ে যায়। বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট ব্যারিয়ার সঠিকভাবে স্থাপন না করার সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী, তদারককারী ও বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠানকে দায়ি মনে করে। তার সঙ্গে নকশাগত দুর্বলতাকেও দোষ দেয়া হচ্ছে।

এদিকে একের পর এক দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১ মার্চ ফুটওভারব্রিজ নির্মাণের দাবিতে হাঁসাড়া এলাকায় এলাকাবাসী এক্সপ্রেসওয়েটিতে অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। তাদের দাবি, পদচারী সেতু না থাকায় এক্সপ্রেসওয়ে পারাপার হতে গিয়ে দুর্ঘটনা বাড়ছে। এজন্য দ্রুত সময়ের মধ্যে হাঁসাড়া কালী কিশোর স্কুল অ্যান্ড কলেজ গেটে পদচারী-সেতু নির্মাণের দাবি জানানো হয়। অন্যদিকে এক্সপ্রেসওয়েতে অধিক দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. হাদিউজ্জামান ওই মহাসড়কটিকে এক্সপ্রেসওয়ে হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তার মতে, যদি এক্সপ্রেসওয়ে বানানো হলে এক্সপ্রেসওয়ের যেসব বৈশিষ্ট্য সেগুলো রাখতে হবে। না হলে সেটা একটা সাধারণ মহাসড়কের মতোই হয়ে যাবে। প্রথম কথা হচ্ছে এক্সপ্রেসওয়েতে বাস-বে রাখা যাবে না। ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে সেটি রাখা হয়েছে। ফলে বাসে উঠতে বা নামতে গিয়ে যাত্রীরা এক্সপ্রেসওয়ের ভেতরে চলে আসছে। পাশাপাশি ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছে। তখনই দুর্ঘটনাগুলো ঘটছে। এখনো পদ্মা সেতু চালু হয়নি। সেতু চালু হলে ট্রাফিক আরো বাড়বে। তখন কিন্তু ওসব সমস্যা আরো বেশি হবে। একমুখী হওয়ার কারণে মুখোমুখি সংঘর্ষ হবে না, কিন্তু বাস-বেগুলোর কারণে পেছন থেকে ধাক্কা দিয়ে দুর্ঘটনার সংখ্যা বেড়ে যাবে। তবে বাস-বেগুলো তুলে দিয়ে কিংবা নতুন করে ‘অর্গানাইজ’ করে ও পথচারীদের পারাপারের জন্য পর্যাপ্তসংখ্যক ফুটওভারব্রিজ কিংবা আন্ডারপাস নির্মাণ করে দুর্ঘটনার সংখ্যা অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব। ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে দুর্ঘটনাপ্রবণ হয়ে উঠার কারণ প্রসঙ্গে গাজীপুর হাইওয়ে রিজিয়নের পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান জানান,

যদি দুর্ঘটনায় হতাহতদের পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করা হয় তাহলে তার মধ্যে পথচারীর সংখ্যাই বেশি দেখতে পাওয়া যাবে। পাশে আন্ডারপাস থাকলেও বেশির ভাগ মানুষ তা ব্যবহার করে না। রেলিং টপকে এক্সপ্রেসওয়ের ওপর দিয়ে রাস্তা পার হয়। শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ সবার মধ্যে একই প্রবণতা। হুটহাট পথচারীদের এক্সপ্রেসওয়ের ভেতরে ঢুকে পড়া দ্রুতগতির গাড়ির চালকদের পক্ষে সব সময় লক্ষ রাখা সম্ভব হয় না। তখনই দুর্ঘটনাগুলো ঘটে। এখনো সেটিকে পুরোপুরি এক্সপ্রেসওয়ে বলা যাচ্ছে না। কারণ কিছু কাজ বাকি রয়ে গেছে। পদ্মা সেতু চালু হলে একেবারে এক্সপ্রেসওয়ে বলতে যা বোঝায়, তার সব অবকাঠামো প্রস্তুত হয়ে যাবে। তখন দুর্ঘটনা স্বাভাবিকভাবেই কমে আসবে।
একই প্রসঙ্গে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের ঢাকা জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খান জানান, এক্সপ্রেসওয়েটিতে নতুন করে আরো ১৬টি ফুটওভারব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তার মধ্যে হাঁসাড়া কালী কিশোর স্কুল অ্যান্ড কলেজ গেটেও একটি পদচারী-সেতু নির্মাণ করা হবে। যেসব জায়গায় বাস স্টপেজ রয়েছে, তার সবগুলোতেই ফুটওভারব্রিজ দেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

বোরো ধানের ফলনে সন্তুষ্ট চাষি : লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি, বলছেন কৃষি অফিস

মোহাম্মদ আলী: বোরো মৌসুমে ধান কাটতে শুরু করেছেন জামালপুরের কৃষকরা। মৌসুম শেষে বিঘা প্রতি তারা যে ফলন পেয়েছেন তাতে...

রৌমারীতে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

রৌমারী সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় বালু ব্যবসায়ী চক্র ব্রহ্মপুত্র নদ-নদীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে অবৈধভাবে ড্রেজারে বালু উত্তোলনে মরিয়া হয়েছে...

শেরপুরে নারী ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে মারধর করার প্রতিবাদে ১ঘন্টা রাস্তা অবরোধ, আটক-১

নাজমুল হোসাইন: শেরপুরে জেলা সদর হাসপাতালে কর্মরত এক নারী ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় আরেক ইন্টার্ন মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্টকে...

সাড়ে ১০ লাখ পরিবার প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তা পাবে বিকাশে

আ.জা. ডেক্স: এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ১০ লাখ দুস্থ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আর্থিক অনুদান পৌঁছে...

Recent Comments