Thursday, July 29, 2021
Home জাতীয় ভোটের মাঠে স্বামী-স্ত্রী, চাচা-ভাতিজা, ভাই-ভাইয়ের লড়াই

ভোটের মাঠে স্বামী-স্ত্রী, চাচা-ভাতিজা, ভাই-ভাইয়ের লড়াই

আ.জা. ডেক্স:

দ্বিতীয় ধাপে ৬১টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৬ জানুয়ারি। এসব পৌরসভায় মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন ছিল ২০ ডিসেম্বর এবং মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হয় ২২ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিন ছিল ২৯ ডিসেম্বর এবং চ‚ড়ান্ত প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয় ৩০ ডিসেম্বর। দ্বিতীয় ধাপের পৌরভোটে কয়েক জায়গায় দেখা গেছে পরিবারের সদস্যরাই একে অপরের প্রতিদ্ব›দ্বী। এসবের মধ্যে বগুড়ার শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মতিয়ার রহমান মতিনের বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়েছেন তার স্ত্রী ফৌজিয়া খানম। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে ৩১ ডিসেম্বর তিনি শিবগঞ্জ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আনিসুর রহমান কবীরের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন। আসন্ন পৌর নির্বাচনে স্বামী বিরুদ্ধে স্ত্রী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ায় বিষয়টি ভোটারদের মধ্যে নানান আলোচনার জন্ম দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রার্থী ফৌজিয়া খানম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তার স্বামী মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন। খুব কাছ থেকে তিনি তার স্বামীর জনসেবা করা দেখেছেন। তারও ইচ্ছে জনসেবা করার। এজন্য এবার তিনি একই পদে স্বামীর সঙ্গে প্রার্থী হয়েছেন। পরিবেশ পরিস্থিতি অনুক‚লে থাকলে তিনি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে লড়বেন। স্ত্রীর প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে মতিয়ার রহমান মতিন বলেন, তার শখ হয়েছে, তিনি ভোট করবেন। তাই বাধা দেইনি। স্বামী-স্ত্রী মিলে প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে শিবগঞ্জ পৌরসভার ১নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম প্রামাণিক বলেন, বিএনপি দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে একাধিক নাশকতার মামলা চলমান রয়েছে। যাচাই-বাছাইকালে হয়তো তার মনোনয়নপত্র বাতিল হতে পারে। এমন আশঙ্কায় হয়তো তিনি স্ত্রীকেও প্রার্থী করেছেন। শিবগঞ্জে বিএনপির পৌর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক এবিএম কামাল সেলিম বলেন, বিএনপির দলীয় প্রার্থীর স্ত্রী কী কারণে প্রার্থী হয়েছেন, তা আমার জানা নেই। বিষয়টি নিয়ে দলীয় ফোরামে কোনো আলোচনাও হয়নি। শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আনিসুর রহমান কবীর বলেন, মেয়র পদে ছয়জন প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে বিএনপি প্রার্থী মতিয়ার রহমান মতিন ও তার স্ত্রী ফৌজিয়া খানম দুজনই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। অন্য প্রার্থীরা হলেন, তৌহিদুর রহমান মানিক (আওয়ামী লীগ), আবদুল মান্নান (বিদ্রোহী আওয়ামী লীগ), আবদুল গাফফার (বিদ্রোহী বিএনপি), সিরাজুল ইসলাম (জাগপা)। এ ছাড়াও সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১১জন ও পুরুষ কাউন্সিলর পদে ৩৩জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন।

অন্যদিকে গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভা নির্বাচনে ৮নং ওয়ার্ড থেকে চাচার প্রতিপক্ষ হয়েছেন আপন ভাতিজা। ৪নং ওয়ার্ড থেকে আপন চাচাতো ভাই ও ৭নং ওয়ার্ডে খালাতো ভাইয়ের প্রতিদ্ব›দ্বী হয়েছেন খালাতো ভাই। কিন্তু সম্পর্ক যাই থাকুক না কেন ভোটের মাঠে কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ। শ্রীপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লড়ছেন চাচা বর্তমান কাউন্সিলর ইজ্জত আলী ফকির ও তার আপন ভাতিজা অ্যাডভোকেট মো. কামাল ফকির। এ ছাড়া ৪নং ওয়ার্ড থেকে আপন চাচাতো ভাই বর্তমান কাউন্সিলর মো. শাহজাহান মÐল ও সাবেক কাউন্সিলর কামরুজ্জামান মন্ডল। অপরদিকে, ৭নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান কাউন্সিলর মো. হাবিবুল্লাহ্ ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। তারা দুজনই সম্পর্কে খালাতো ভাই। তাদের দুজনে মা সম্পর্কে চাচাতো বোন। ৮নং ওয়ার্ডের ভাতিজার প্রতিদ্ব›দ্বী চাচা বর্তমান কাউন্সিলর ইজ্জত আলী ফকির বলেন, এর আগেও একাধিকবার নির্বাচন করেছি। গত নির্বাচনে জনগণ বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী করে ওয়ার্ডবাসী সেবা করার সুযোগ দিয়েছে। এবারও ওয়ার্ডবাসী আমাকে নির্বাচিত করবে আশা ব্যক্ত করে তিনি। এদিকে, একই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন তার আপন ভাতিজা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. কামাল ফকির। তিনি বলেন, আমি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে সৎ ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছি। বিশ্বাস করি ৮নং ওয়ার্ডের জনগণ সততার বিচারে আমাকে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন। ৪নং ওয়ার্ড থেকে আপন চাচাতো ভাই বর্তমান কাউন্সিলর মো. শাহজাহান মন্ডল ও সাবেক কাউন্সিলর কামরুজ্জামান মন্ডলের মধ্যে হবে ভোটের লড়াই। এ লড়াইয়ে জিততে কেউ কাউকেই ছাড় দিতে নারাজ। জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বর্তমান কাউন্সিলর মো. শাহজাহান মন্ডল বলেন, গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিয়ে কাউন্সিলর হিসেবে এলাকার উন্নয়ন করার সুযোগ দিয়েছিলেন। এখনও অনেক কাজ অসমাপ্ত থাকায় এবারের নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। অন্যান্য প্রার্থীর চাইতে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবেন বলে আশা করছেন তিনি। তবে সাবেক কাউন্সিলর কামরুজ্জামান মন্ডল জানান, গত পাঁচ বছর জনগণের আশার চাইতে প্রাপ্তি ছিল খুব নগণ্য। সাধারণ ভোটারের ব্যাপক সমর্থন পাচ্ছি বলে জানান তিনি।

অপরদিকে, ৭নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান কাউন্সিলর মো. হাবিবুল্লাহ্ ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। তারা দুজনই আপন খালাতো ভাই। আবার জয়ের ব্যাপারে দুজনই আশাবাদী। বর্তমান কাউন্সিলর যুবলীগ নেতা মো. হাবিবুল্লাহ্ জানান, জনগণের প্রাপ্তিটুকু সঠিকভাবে পৌঁছে দিতে পারায় কাউন্সিলর হিসেবে জনগণ তাকে বেছে নিবে। অপর প্রার্থী আবুল হোসেন বলেন, প্রত্যাশার তুলনায় প্রাপ্তি খুব কম ছিল। তাই সাধারণ ভোটাররা এবার প্রার্থী নির্বাচনে খুব ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিবে। জনগণকে দেয়া কথা নির্বাচনে জয়ী হলে তা অক্ষরে অক্ষরে পূরণ করবো। উল্লেখ্য, ২৬টি কেন্দ্রের ১৯০টি বুথে আগামী ১৬ জানুয়ারি এ পৌরসভায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ৬৭হাজার ৯২৭জন ভোটারের মন জয় করতে ৬৪জন প্রার্থী ভোটের মাঠে লড়ছেন। সবগুলো কেন্দ্রেই ভোট ইভিএমে নেয়া হবে জানা গেছে। আওয়ামীলীগ-বিএনপি প্রার্থীসহ মেয়র পদে ৪জন, কাউন্সিলর পদে ৪৯জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১জন প্রতিন্ধীতা করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

জামালপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান : জরিমানা আদায়

এম.এ.রফিক: করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত লকডাউনের নির্দেশনা না মানায় জামালপুর সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গতকাল মঙ্গলবার ভ্রাম্যমান আদালতের...

জামালপুর পৌর মেয়রের নির্দেশে ভেঙে দেওয়া হলো নিম্নমানের প্যালাসাইডিং

নিজস্ব সংবাদদাতা: জামালপুর পৌরসভার একটি প্যালাসাইডিং এর নির্মাণ কাজ নিম্নমানের হওয়ায় পৌর মেয়রের নির্দেশে তা ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছে পৌর...

জামালপুরে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের ২৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

নিজস্ব প্রতিনিধি: নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জামালপুরে পালিত হয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।এ উপলক্ষে মঙ্গলবার...

বকশীগঞ্জে লকডাউনের পঞ্চম দিনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১৪ মামলা

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি: বকশীগঞ্জে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের পঞ্চম দিনে বিধিনিষেধ মানাতে তৎপর উপজেলা প্রশাসন। মঙ্গলবার সরকারি আদেশ অমান্য করে...

Recent Comments