Friday, June 21, 2024
Homeরাজনীতিভোট চোরদের পকেট থেকে আমাদের পারিবারিকতা লোকজনের জন্ম হয় নাই - গণতন্ত্রের...

ভোট চোরদের পকেট থেকে আমাদের পারিবারিকতা লোকজনের জন্ম হয় নাই – গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ

১৬ ডিসেম্বর গণতন্ত্রের মহারাজার বাড়িতে বিবিএফ পার্টি প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ১৬ ডিসেম্বর গণতন্ত্রের রানীর বাড়িতে বিবিএফ পার্টি প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ১৬ ডিসেম্বর গণতন্ত্রের আলোর বাড়িতে বিবিএফ পার্টি প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ১৬ ডিসেম্বর গণতন্ত্রের হিরোর বাড়িতে বিবিএফ পার্টি প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত গণতন্ত্রের রাজার বাড়িতে বিবিএফ পার্টির প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে।গণতন্ত্রের রাজা বিশ্বে প্রথম এন ইউ আহম্মেদ ডিজিটাল ইমেইল প্রক্রিয়াতে ৭ টি বাড়ির নামকরণ প্রতিষ্ঠা এবং উদ্বোধন করলেন ময়মনসিংহ, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার আঠার বাড়ির সহিলাটি গ্রাম এবং নান্দাইল উপজেলার মধ্য বাঁশহাটি গ্রামে। উপস্থিত ছিলেন গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ এর মাতাপিতা world love flag Mother , বিশ্বে প্রথম Love Nobel Prize winner -2023, world love flag humanity King -2023 মোছাম্মদ মাতিয়া খাতুন, world love flag Father, বিশ্বে প্রথম love Nobel Prize winner -2023, world love humanity King -2023 এবং ছোট ভাই বোন নানী গ্রামের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। সাতটা বাড়ির নামকরণ ডিজিটাল ইমেইল প্রক্রিয়াতে প্রতিষ্ঠা এবং উদ্বোধন করেন ঈশ্বরগঞ্জ আঠার বাড়ির সহিলাটি গ্রামে উত্তর পাড়া/ দক্ষিণ পাড়া এবং নান্দাইল উপজেলার মধ্য বাঁশহাটি গ্রামে। নাম করণ ও উদ্ভোধন করে বাড়িতে নামকরণ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। বাড়ির নাম ১/গণতন্ত্রের মহারাজার বাড়ি ২/গণতন্ত্রের মহারাণীর বাড়ি ৩/ গণতন্ত্রের রাজার বাড়ি, ৪/ গণতন্ত্রের রাণীর বাড়ি ৫/ গণতন্ত্রের আলোর বাড়ি ৬/ গণতন্ত্রের বন্ধুর বাড়ি এবং গণতন্ত্রের হিরোর বাড়ি। ইমেইল ডিজিটাল প্রক্রিয়াতে বিশ্বে প্রথম ৭ টি বাড়ির নাম করণ, আত্ম প্রকাশ এবং উদ্বোধন করেন গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ। ৭ টি বাড়ির নাম করণ, প্রতিষ্ঠা এবং উদ্বোধন করার পর গণতন্ত্রের রাজার বাড়ি, গণতন্ত্রের রাণীর বাড়ি, গণতন্ত্রের মহারাজার বাড়ি, গণতন্ত্রের মহারাণীর বাড়ি, গণতন্ত্রের আলোর বাড়ি, গণতন্ত্রের বন্ধুর বাড়িতে, গণতন্ত্রের হিরোর বাড়ি অর্থাৎ ৭ টি বাড়িতে কেক কেটে বিবিএফ পার্টির ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। বিজয় মানুষ, বিজয় উল্লাস বিজয় পতাকা, বিজয় জনগন বিবিএফ পার্টির স্লোগান কে নির্ধারণ করা হয়েছে। সাতটি বাড়ির নামের ইমেইল ডিজিটাল প্রক্রিয়াতে গণতন্ত্রের মহারাজার বাড়ি ঈশ্বরগঞ্জ আঠার বাড়ির সহিলাটি গ্রামে। গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ বলেন, ভবিষ্যতে বিবিএফ পার্টি আমরা দেশ পরিচালনা করবো প্রতিজ্ঞা করেছি।৷বিবিএফ পার্টি সরকার গঠন করবো ভবিষ্যতে তখন রাজনীতির ধারা পরিবর্তন করে ফেলাবো।ভোট চোরেরা ভোট চোর দের পকেট থেকে তৈরি হয়ে সরকার গঠন করে, ভোট চোরদের বংশ ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয়েছে। ভোট চোর শাসক ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয়েছে এবং আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চক্রান্ত করে থাকে। কাউকে হত্যা করে আর কাউকে তৈরি করার উদ্দেশ্য রাজনীতি করে ভোট চোর লীগ। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ দুইটি সংগঠনের ও আত্ম প্রকাশ করেছে। ইন্টারন্যাশনাল ফেসবুক শান্তিসংঘ, ইন্টারন্যাশনাল ইউটিউব শান্তিসংঘ। মূলত দুইটি সংগঠন বিবিএফ পার্টির প্রচার ও প্রকাশণাতে সহ বিভিন্ন কার্যক্রম এর ভূমিকা পালন করবে। দুটি সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ফেসবুক শান্তিসংঘ এবং ইন্টারন্যাশনাল ইউটিউব শান্তিসংঘ সংগঠন পক্ষ থেকে বিবিএফ পার্টির প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালণ করেছে। বিবিএফ পার্টির প্রধান কার্যালয় ঈশ্বরগঞ্জ আঠার বাড়ির সহিলাটি গ্রামে গণতন্ত্রের রাজার বাড়ি এবং নান্দাইল উপজেলার মধ্যে বাঁশহাটি গ্রাম গণতন্ত্রের বন্ধুর বাড়িতে। শাখা কার্যালয় রাজধানী ঢাকাতে নির্ধারণ করা হয়েছে। বিবিএফ পার্টি ৬ টি শাখায় কমিটির নেতাদের কে শাখার লিডার বলা হবে বলে জানান। বিবিএফ পার্টি ডিজিটাল বীরপারসন, ডিজিটাল স্মার্ট পারসন এবং ডিজিটাল পারসন তিনটা গুরুত্বপূর্ণ পদবী। ৬ টি শাখায় গুরুত্বপূর্ণ পদবী শাখা লিডার। বিবিএফ পার্টি ২২ টি অঙ্গ সংগঠন এর নাম ঘোষণা করা হয়েছে। গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ বলেন, আমি আপনাদের মতো ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয় নাই। আমি সারা দেশে বিদেশে আন্তর্জাতিক ভাবে সব মানুষ কে ইন্টারন্যাশনাল ফেয়ার ভোটিং ডে দিয়েছি।। ভোট চোর দের পকেট থেকে আমার জন্ম না। ভোট চোর দের পকেট থেকে আমার পারিবারিকতার লোকজনের জন্ম হয় নাই। আমার মা বাবা এবং আমাদের পারিবারিকতা ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয় নাই। এজন্য আমাদের পারিবারিকতার ক্ষতি করতে উদ্দেশ্য বিগত বছরগুলোতে ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয়েছে তাদের চেষ্টা ও উদ্দেশ্য। কিন্তু এদেশের ভোট চোর লীগ ক্ষমতা শালী হিজড়া লীগে গুম খুন হত্যা করে থাকে এবং সারা দেশে গুম খুন হত্যা দিবস দিয়েছে, কোন গুম খুন হত্যার কোন বিচার হচ্ছে না কারণ আসলে হিজড়া শাসক ক্ষমতা থেকে গুম খুন হত্যা করায়ে থাকে। ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম হয়েছে কুখ্যাত লীগের সরকার। ভোট চোর দের পকেট থেকে লীগের জন্ম। কুখ্যাত সন্তাসী আওয়ামী লীগের এমপি মন্ত্রী এবং নেতাদের বংশ ভোট চোর দের পকেট থেকে জন্ম। সারা দেশের মানুষ কে প্রতিবন্ধী ধারণাতে হিজড়ারা ভোট চুরি করে থাকে, দেশে কোন ভোট চোর দের বিচার নাই কারণ হিজড়া শাসক ক্ষমতাবান। ভোট চোর দের অধীনে নির্বাচন দূর্গন্ধ। ভোট চোর কুখ্যাত লীগের শাসকের অধীনে নির্বাচনকে আমার পক্ষ থেকে চিরতরে ঘূর্ণা জানাচ্ছি। গণতন্ত্রের রাজা এন ইউ আহম্মেদ বলেন, আওয়ামী লীগ নামে কোন রাজনৈতিক সংগঠন আছে এটা আমার জানা নেই তবে সন্তাসী আওয়ামী লীগ নামে সংগঠন কে নিষিদ্ধ ও নিষেধাজ্ঞা করছি আমার জানা আছে। আমি ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ে দিবসে ঘূর্ণা জানাচ্ছি ভোট চোর গুম খুন হত্যা দিবস দিয়েছে কুখ্যাত ভোট চোর লীগের শাসক, ভোট চোর লীগ নির্বাচনী রাজাকার বাহিনীকে।

Most Popular

Recent Comments