Thursday, July 18, 2024
Homeজামালপুরমাদারগঞ্জে ঝারকাটা নদীর জলভাগ ও স্থলভাগ দখল করে নিচ্ছে এলাকার কিছু প্রভাবশালীরা

মাদারগঞ্জে ঝারকাটা নদীর জলভাগ ও স্থলভাগ দখল করে নিচ্ছে এলাকার কিছু প্রভাবশালীরা

মাদারগঞ্জ সংবাদদাতা : জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপাকেরদহ ও কড়ইচড়া ইউনিয়নের মধ্যে দিয়ে বয়েগেছে যমুনার শাখা যার নাম ঝারকাটা নদী। সেই নদী থেকে প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ টাকার বালি উৎতলন করে বিভিন্ন যায়গায় বিক্রি করছে। আর যে যায়গায় জল রয়েছে সেখানে জাল দিয়ে ঘির দিয়ে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মাছ চাষ করছে। এর ফলে নদীর পানিতে নামতে দেওয়া হচ্ছেনা সাধারণ মানুষদের। এলাকার সাধারণ জেলেরা ওই নদীতে আর মাছ ধরতে পারতে ছেনা।যার কারণে তাদের সংসার চালাইতে হিমসিম খাচ্ছে। এলাকাবাসি ও চরপাকেরদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বদরুল আলম সরদার এর নিকট ঝারকাটা নদীর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন যে উপজেলা থেকে কয়েক বার মাইকিং করে জনসাধারণকে নিষেধ করা হয়েছে। নদী দখল করা যাবেনা কিন্তু কে শুনে কার কথা। আবার দখল কারীরা নদী দখল করে জাল দিয়ে ঘির করে মাছ চাষ করতেছে এবং কিছু বালু বিক্রেতা নদীতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালি বিক্রি করছে। এতে আসপাসের আবাদী জমি নষ্ট হচ্ছে। জমির মালিক ড্রেজার মালিককে কিছু বলতে গেলে ড্রেজার মালিক জমিনের মালিককে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করার অভিযোগ রয়েছে। সাধারণ মানুষের ধারনা এইনদী কোন দিন দখলমুক্ত হবেনা তার কারণ প্রশাসনের নিরব থাকার কারণে। প্রশাসন ইচ্ছে করলেই ২৪ ঘন্টার মধ্যেই নদী দখল মুক্ত করতে পারবে। গত শুক্রবার সকালে কয়েক জন মৎসজীবি ঝারকাটা নদীতে মাছ ধরতে গেলে তাদেরকে মারার জন্য এসে ছিল নদী দখল দার টিক্কে,গেন্দা,জামালী খোরশেদ, আমিনুরসহ আরকয়েক জন। মৎসজীবি ছোলাইমান,আলফাজ,ইমেন আলী,মিজানুর,রহিজল ও বানু মিয়া জানান যে অল্প থেকে আমরা জানে বেচে এলাম। তারা আমাদের মাছ মারা ত দুরের কথা নদীর পানিতে নামলেই খুন করে ফেলাবে বলে বিভিন্ন হুমকি দিয়েছে গেন্দার ছেলে । উক্ত ঝারকাটা নদী মুক্ত করা এবং নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু তুলা বন্দ করার জন্য জরুরী প্রদক্ষেপ নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের সু-দৃষ্টি দেওয়ার জন্য এই উপজেলার মৎসজীবি ও সাধারণ জনগন জুরালো আবেদন জানিয়েছেন।

Most Popular

Recent Comments