Saturday, October 23, 2021
Home জামালপুর মাদারগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের ভেলকিবাজি, অতিষ্ঠ গ্রাহক

মাদারগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের ভেলকিবাজি, অতিষ্ঠ গ্রাহক

খাদেমুল ইসলাম:

জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলায় পল্লী বিদ্যুতের লোডশেডিং ভেলকিবাজিতে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেছে গ্রাহকরা। দুই-এক দিনের নয়, নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে এই ভোগান্তি। গত ২৪ ঘন্টায় বুধবার রাত পর্যন্ত প্রায় ১৫ ঘন্টা বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটেছে মাদারগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতে। দিন দিন বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়লেও বিতরণ কোম্পানিগুলো প্রতিযোগিতা করছে লোডশেডিংয়ের। একবার বিদ্যুৎ চলে গেলে কখন ফিরবে তার নেই নিশ্চয়তা। দিন-রাত ইচ্ছে মতো সময়ে অসময়ে বিদ্যুৎ বন্ধ করে দেওয়া এখন বিদ্যুৎ অফিসের নিয়মে পরিণত হয়েছে। বিদ্যুতের এমন আচরণে রাতের বেলা একটু শান্তিতে ঘুমাতে পারছেন না গ্রাহকরা। শিক্ষার্থীরা রাতের বেলা ঠিকমতো লেখাপড়া করতে পারছে না। শুধু তাই নয়, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, চিকিৎসা, ব্যাংকিং সেবা, শিক্ষা ও গৃহস্থালি কাজকর্ম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বিদ্যুৎ নির্ভর ব্যবসা-বাণিজ্যে দেখা দিয়েছে চরম স্থবিরতা। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে ফ্রিজ, মোটর, কম্পিউটার, বাল্বসহ যান্ত্রিক ও ইলেকট্রিক সামগ্রী নষ্ট হচ্ছে। দিন-রাত যে কতবার বিদ্যুৎ আসে যায় তা হিসেব পাওয়া যায় না। বিদ্যুৎ এই আছে তো এই নেই। বিদ্যুতের এমন লুকোচুরি খেলা বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী গ্রাহকরা।

স্থানীয়রা বলেছেন, সরকার শতাভাগ বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেছেন। একটি চক্র মূলত সরকারের বিরুদ্ধে মরণ খেলায় মেতেছে। সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি দেশব্যাপী বিদ্যুতের সাব স্টেশনগুলোও আপগ্রেড করছে। প্রতিটি প্রকল্পে হাজার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে। কিন্তু সুফল পারচ্ছে না বিদ্যুতের বিতরণ কোম্পানিগুলোর দুর্নীতি, লুটপাট আর ষড়যন্ত্রের কারণে। গত আগষ্ট মাস থেকে চলতি মাসে প্রতিদিন ৭-৮ বার বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটেছে মাদারগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতে।
জামালপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মাদারগঞ্জ জোনাল অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় পল্লী বিদ্যুতের প্রায় ৭৫ হাজার গ্রাহক রয়েছে। এ উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ১২ মেগাওয়াট। বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ৫-৮ মেগাওয়াট। জেলায় দুইটি বিদ্যুৎ পাওয়ার প্ল্যান্টে কাজ চলছে। যার ফলে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটেছে।

পৌরসভার বালিজুড়ী এলাকার জুলফিকার আলী বাবলু, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, গুনারিতলা ইউনিয়নের জোড়খালী এলাকার বাবু মিয়া, জোড়খালী ইউনিয়নের হাটমাগুরা এলাকার উজ্জল মিয়া, বিল্লাহসহ বেশকয়েকজন গ্রাহক জানান, বিদ্যুৎ চলে গেলে কখন আসবে তা কেউ জানে না। কখনও ১৫-২০ মিনিট আবার কখনও দু-চার ঘণ্টা পরে আসে বিদ্যুৎ। প্রায়দিন সন্ধ্যায় হলেই চলে যায় বিদ্যুৎ, আসে অনেক রাতে। স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসে ফোন দিলে কখনও ব্যস্ত, কখনও বন্ধ বলে, মাঝে মধ্যে ফোন রিসিভ হলে তারা নানান অজুহাত দিতে থাকে। আমাদের মতো সাধারণ মানুষই শুধু ভোগান্তির শিকার হয়। এর শেষ কোথায়?

মাদারগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) জসিম উদ্দীন জানান, উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ১২ মেগাওয়াট। কিন্তু বিদ্যুৎ পাচ্ছি ৫-৮ মেগাওয়াট। জেলায় দুইটি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র রয়েছে। একটি সিকদার পাওয়ার প্ল্যান্ট ও ইউনাইটেড পাওয়ার প্ল্যান্ট। দু’টি পাওয়ার প্ল্যান্টে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চলছে। রক্ষণাবেক্ষণ কাজ শেষ হলেই এ সমস্যার সমধান হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

পাকিস্তানসহ পাঁচ দেশকে আমন্ত্রণ জানালো ভারত

আ.জা. আন্তর্জাতিক: আফগানিস্তানে ক্ষমতার পালাবদল নিয়ে ভারতের অস্বস্তি কাটছেই না। একদিকে তালেবানের ওপর পাকিস্তানের প্রভাব, অন্যদিকে আফগানিস্তানে দিল্লির...

কুয়েতে তেল শোধনাগারে অগ্নিকাণ্ড

আ.জা. আন্তর্জাতিক: কুয়েতের গুরুত্বপূর্ণ একটি তেল শোধনাগারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানি জানিয়েছে, সোমবারের এ...

পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

আ.জা. আন্তর্জাতিক: আইন করে দেশে পতিতাবৃত্তি বন্ধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ। রোববার তার দল সোস্যালিস্ট...

২০০ নারী-পুরুষের পোশাকহীন ফটোশ্যুট

আ.জা. আন্তর্জাতিক: স্পেন্সার টিউনিক প্রথম মৃত সাগরে তার লেন্স স্থাপন করার ১০ বছর পর বিশ্বখ্যাত এই আলোকচিত্রী আরেকবার...

Recent Comments