Friday, October 22, 2021
Home জামালপুর মাদারগঞ্জে ভুমিহীন গৃহহীনদের ঘর নির্মানে অনিয়ম, অবশেষে ২নং ইট ফেরৎ দিলেন ইউএনও

মাদারগঞ্জে ভুমিহীন গৃহহীনদের ঘর নির্মানে অনিয়ম, অবশেষে ২নং ইট ফেরৎ দিলেন ইউএনও

মাদারগঞ্জ সংবাদদাতা:

জামালপুরে মাদারগঞ্জে মজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মাদারগঞ্জে প্রকৃত গৃহহীনদের জন্য ১২১টি বাড়ী নির্মানের জন্য সরকারীভাবে ২ কোটি ৬৯ লাখ ১ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। প্রতিটি বাড়ীর জন্য ২ কক্ষ বিশিষ্ট শোবার ঘর একটি রান্না ঘর ও করিডোরসহ বাথরুম নির্মানে প্রতিটি বাড়ীর জন্য বরাদ্দ ১লাখ ৭১ হাজার টাকা সরকারীভাবে দেওয়া হয়েছে। উক্ত বাড়ীগুলো নির্মানের কোন প্রকার ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়নি। বাড়ীগুলি তৈরি কাজে সরাসরি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী ভুমি কর্মকর্তা দায়িত্ব নিয়ে কাজগুলি করতেছেন। কিন্তু ৬নং আদারভিটা ইউনিয়নে ১৫টি পরিবারকে প্রাথমিকভাবে চুড়ান্ত করা হয়েছে। সে স্থানটি হলো গজারিয়া। উক্ত প্রকল্পে প্রতিটি ঘরের মালিকের উপরে নিজ নিজ ঘরের ভিটি তৈরি করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে ভুক্তভুগিরা জানিয়েছেন। প্রতিটি বাড়ীর ভিটি তৈরি করতে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা মাটি কাটা বাবদ ব্যয় হচ্ছে। হতদরিদ্র ও গৃহহীনেরা উক্ত মাটি কাটার জন্য সুদের উপর টাকা নিয়ে তারা ঘরের ভিটা তৈরি করছে। উক্ত বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ওবায়দুর রহমান বেলালের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান যাদের নামে ঘর বরাদ্দ হয়েছে তারা কোন প্রকার ঘরের ভিটে মাটি কাটার টাকা দিবে না। উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কে বলা হয়েছে যে, উক্ত ১৫টি বাড়ীর মাটি কর্ম সিজন প্রকল্পের লেবার দিয়ে মাটি কেটে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কিছু অসাদু ব্যক্তি উক্ত ভুমিহীন পরিবারগুলিকে বিভিন্নভাবে ভয়ভিতি দেখিয়ে বলেছে, যদি তোমরা নিজেদের বাড়ীর ভিটি তৈরি করতে না পারো, তাহলে তোমাদের নামে বরাদ্দকৃত বাড়ী অন্য জনের নামে চলে যাবে। উপজেলা চেয়ারম্যান আরো বলেন এই প্রকল্পে কোনো প্রকার অনিয়ম বা দূর্নীতি হলে সে যেই হোক কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এই ভয়ে তারা টাকা সুদের উপর নিয়ে ঘরের ভিটি তৈরি করতেছে। তালিকা ভুক্ত রোকেয়া বেগম জানান যে, মাটি কাটার জন্য ইতিমধ্যে ১৫ হাজার টাকা সুদের উপর নিয়ে আংশিক মাটি কেটেছে। শিলা, আলাতন, রোকন, লিটন তারা বলেছেন, আমাদের নামে সরকার ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু ঘরের ভিটি তৈরি করার জন্য যে, টাকা প্রয়োজন সে টাকা সুদের উপর নিয়ে ভিটি তৈরি করলে আমরা পড়ে ঐ টাকার সুদ দিতে বিপাকে পড়ব। ইতি মধ্যে ঐ ১৫টি বাড়ি নির্মান করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল মুনসুর ইট ক্রয় করার জন্য মিতু ব্রিকসের গিয়ে ইট ভাটার মালিক আবুল কালাম এর নিকট থেকে ৩ লাখ ২নং ইট ক্রয় করার জন্য চুক্তি করেন। এর মধ্যে গজারিয়া প্রকল্পে ১০ হাজার ২নং ইট নিয়ে যাওয়া হয়। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ২নং ইটগুলি ঐ প্রকল্প থেকে সরে নেওয়ার জন্য ইট ভাটার মালিক আবুল কালাম আজাদকে চাপ প্রয়োগ করেন। অপরদিকে ইট ভাটার মালিক আবুল কালাম আজাদ জানান উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল মুনসুর তিনি নিজে আমার ইট ভাটায় এসে ২নং ইট প্রতি হাজার ৬ হাজার ৫০০শত টাকায় ক্রয় করেন। ১নং ইটের দাম প্রতি হাজার ৮ হাজার ৫০০শত টাকা। এখন তিনি আমাকে ঐ ২নং ইট ফেরৎ আনার জন্য বার বার চাপ প্রয়োগ করছেন। ঐ প্রকল্পে ১৫টি ঘরের মধ্যে ১টি ঘরের ওয়াল নির্মান করা হয়েছে। নির্মান অবস্থায় দেওয়ালের বিভিন্ন জায় গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন কোন প্রকার প্রকল্পে ২নং ইট নেওয়া হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

পাকিস্তানসহ পাঁচ দেশকে আমন্ত্রণ জানালো ভারত

আ.জা. আন্তর্জাতিক: আফগানিস্তানে ক্ষমতার পালাবদল নিয়ে ভারতের অস্বস্তি কাটছেই না। একদিকে তালেবানের ওপর পাকিস্তানের প্রভাব, অন্যদিকে আফগানিস্তানে দিল্লির...

কুয়েতে তেল শোধনাগারে অগ্নিকাণ্ড

আ.জা. আন্তর্জাতিক: কুয়েতের গুরুত্বপূর্ণ একটি তেল শোধনাগারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানি জানিয়েছে, সোমবারের এ...

পতিতাবৃত্তি বন্ধ করতে চান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী

আ.জা. আন্তর্জাতিক: আইন করে দেশে পতিতাবৃত্তি বন্ধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেড্রো সানচেজ। রোববার তার দল সোস্যালিস্ট...

২০০ নারী-পুরুষের পোশাকহীন ফটোশ্যুট

আ.জা. আন্তর্জাতিক: স্পেন্সার টিউনিক প্রথম মৃত সাগরে তার লেন্স স্থাপন করার ১০ বছর পর বিশ্বখ্যাত এই আলোকচিত্রী আরেকবার...

Recent Comments