Friday, September 30, 2022
Homeআন্তর্জাতিকমিয়ানমারে জঙ্গল থেকে উদ্ধার ৪০ লাশ

মিয়ানমারে জঙ্গল থেকে উদ্ধার ৪০ লাশ

আ.জা. আন্তর্জাতিক:

মিয়ানমারে চলমান সহিংসতার মধ্যে স¤প্রতি কয়েক সপ্তাহে জঙ্গল এলাকা থেকে ৪০ টি মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে লড়ে যাওয়া একটি মিলিশিয়া বাহিনী এবং স্থানীয় অধিবাসীরা। এর মধ্যে কিছু মরদেহে নির্যাতনের চিহ্নও রয়েছে বলে জানিয়েছেন মিলিশিয়া বাহিনীর এক সদস্য। গণমাধ্যমের প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে একই কথা। সাগাইং অঞ্চলে কানি শহরের আশপাশে বিভিন্ন স্থানে লাশগুলো পাওয়া গেছে। স¤প্রতি কয়েক মাসে এই অঞ্চলে সামরিক শাসনের বিরোধীদের গড়ে তোলা মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সেনাবাহিনীর তুমুল লড়াই হয়েছে। আর সেখানকার জঙ্গল থেকেই এতগুলো লাশ উদ্ধারের খবরে মূর্ত হয়ে উঠেছে মিয়ানমার জান্তা সরকারের চলমান নৃশংসতার চিত্র। তবে বার্তা সংস্থা রয়র্টাস লাশ খুঁজে পাওয়ার দাবি নিরপেক্ষ সূত্রে যাচাই করতে পারেনি। বিষয়টি সম্পর্কে জানার জন্য সামরিক বাহিনীর মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি। কানি মিলিশিয়া বাহিনীর নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদস্য বলেছেন, এলাকাটিতে লড়াই এখন মূলত থেমে গেছে। আরও লাশ সেখানে খুঁজে পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন তিনি। কানি মিলিশিয়ার এই সদস্য জানান, “প্রত্যন্ত ওই অঞ্চলের বেশিরভাগ গ্রামবাসীই কাছের শহরগুলোতে পালিয়ে গেছে।” মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং জান্তাপন্থি একটি মিলিশিয়া বাহিনী এলাকাটিতে প্রতিশোধমূলক হত্যাযজ্ঞ এবং লুটপাট চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

গত ১ ফেব্রুয়ারিতে অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা থেকে হটিয়ে সেনাবাহিনী মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করার পর থেকে দেশটিতে শত শত মানুষের মৃত্যু হয়েছে। শক্তি প্রয়োগ করে সেনাবাহিনীর বিক্ষোভ দমনাভিযান এবং রাতারাতি গড়ে ওঠা হালকা অস্ত্রসজ্জিত স্থানীয় মিলিশিয়া বাহিনীগুলোর সঙ্গে সেনাবাহিনীর লড়াইয়ের মধ্যে পড়ে এই বিপুল সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। মিয়ানমারের ইরাবতী পত্রিকা স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, ৩০ জুলাইয়ে সাগেইং অঞ্চলের জঙ্গল এলাকায় ১৪ বছর বয়সী একজনের মৃতদেহসহ ১২ টি লাশ পাওা যায়। সবগুলো মরদেহেই ছিল নির্যাতনের চিহ্ন। এর আগে জুলাইরে শুরুর দিকে ওই এলাকারই আরেকটি গ্রামে পাওয়া গিয়েছিল ১৬ টি লাশ এবং অন্যান্য এলাকায় মিলেছিল আরও ১২ টি লাশ।

রয়টার্স গতমাসে জানিয়েছিল, অন্তত ৭ টি মরদেহ পাওয়া গেছে এবং মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলো আরও লাশ খুঁজছে। এরপরই এলাকাটির বিভিন্ন স্থান থেকে এ পর্যন্ত উদ্ধার পাওয়া মোট লাশের সংখ্যা ৪০ বলে জানালেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মিলিশিয়া সদস্য। গত ৩০ জুলাইয়ে সামরিক বাহিনীর একটি নিউজলেটারে বলা হয়েছিল, কানির একটি গ্রামের কাছে নিরাপত্তা বাহিনী প্রায় ১০০ ‘সন্ত্রাসীর’ হামলার শিকার হয়েছে। সেনাবাহিনী সেই হামলার পাল্টা জবাবও দিয়েছে এবং ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্রশস্ত্রসহ ৯ টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments