Friday, May 24, 2024
Homeরাজনীতিমেয়রের কাছে জলাবদ্ধতা নিয়ে অভিযোগ জানালেন নানক

মেয়রের কাছে জলাবদ্ধতা নিয়ে অভিযোগ জানালেন নানক

আগুনে পুড়ে যাওয়া মোহাম্মদপুরের কৃষি মার্কেটের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে চলছিল বৈঠক। আর সেই বৈঠকেই এই মার্কেটটির জলাবদ্ধতার বিষয়ে ডিএনসিসি মেয়রের কাছে অভিযোগ জানিয়ে দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।

সোমবার (২৩ অক্টোবর) অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত মার্কেট পরিদর্শন শেষে মোহাম্মদপুরের সূচনা কমিউনিটি সেন্টারে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনার সময় তিনি মেয়রের কাছে এই অভিযোগ জানান।

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই এই কৃষি মার্কেটের সামনের রাস্তায় পানি জমার আগেই মার্কেটের ভেতরে এক হাঁটু পানি জমে যায়। জলাবদ্ধতায় মার্কেটের দোকানের চালসহ অন্যান্য সব মালামাল নষ্ট হয়ে যায়। তাই আমি অনুরোধ করব, ব্যবসায়ীদের ক্ষতি থেকে মুক্তি দিতে মেয়র আপনি এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

এসময় বৈঠকে উপস্থিত মার্কেটের দোকান মালিক, ব্যবসায়ী, কর্মচারী সবাই করতালির মাধ্যমে জাহাঙ্গীর কবির নানকের দাবির প্রতি সমর্থন জানান। সেই সঙ্গে দাবি আদায়ে সবাই একসঙ্গে স্লোগান দিতে থাকেন।

পরে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলামের বক্তব্যের সময় মেয়র ঘোষণা দিয়ে বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে এই সমস্যার সমাধান করে দেওয়া হবে। 

আতিকুল ইসলাম ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতি নির্দেশনা দিয়ে বলেন, আপনি নিজে উদ্যোগ নিয়ে এই সমস্যার সমাধান করবেন আগামী ৭ দিনের মধ্যে। এরপর আমাকে ছবি পাঠিয়ে এই কাজটা যে করা হয়েছে তা নিশ্চিত করবেন। সাত দিনের একদিনও যেন বেশি না লাগে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ না করতে পারলে আপনারা (ব্যবসায়ীরা) আমাকে ছবি পাঠিয়ে জানিয়ে দেবেন, আমি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে নতুন করে, অস্থায়ী ভিত্তিতে নির্মাণ কাজ শুরু হবে আগামী ৩০ অক্টোবর থেকে। 

আতিকুল ইসলাম বলেন, আপনারা ব্যবসায়ীরা যেন কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হোন সেজন্য আমরা সবার সঙ্গে আলোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী ৩০ অক্টোবর থেকে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত এই কৃষি মার্কেট নতুন করে অস্থায়ী ভিত্তিতে নির্মাণকাজ শুরু হবে। এরপর যার যেখানে দোকান ছিল, যতটুকু জায়গা ছিল সে অনুযায়ীই আপনারা দোকান বরাদ্দ পাবেন। আপাতত আপনাদের ব্যবসা যেন বন্ধ না থাকে, আপনারা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হন, সেজন্যই আমাদের এই সিদ্ধান্ত। তবে আমরা পরে এখানে পরিকল্পিত বহুতল ভবন মার্কেট নির্মাণ করব। তখন মার্কেটে নির্মাণের জন্য জায়গা ছেড়ে দিতে হবে। নতুন বহুতল মার্কেট নির্মাণ হওয়ার পর আপনারাও অবশ্যই এখানে দোকান বরাদ্দ পাবেন। এটি নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তা নেই।

ডিএনসিসির স্থানীয় ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সলিমুল্লাহ সলুর সভাপতিত্বে ক্ষতিগ্রস্ত মার্কেট কমিটির সদস্য, ব্যবসায়ীরা ছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ঢাকা ১৩ আসনের সংসদ সদস্য সাদেক খান, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা প্রমুখ।

Most Popular

Recent Comments