Friday, December 9, 2022
Homeআন্তর্জাতিকরোববার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দিন দেখলো গাজা

রোববার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দিন দেখলো গাজা

আ.জা. আন্তর্জাতিক:

গাজায় ইসরায়েলি বর্বর হামলা দ্বিতীয় সপ্তায় গড়ালো। এ পর্যন্ত নিহত হয়েছেন প্রায় ২০০ ফিলিস্তিনি। তাদের মধ্যে অর্ধ-শতাধিক শিশু। হামলা শুরুর পর রোববার দিনটি ছিল সবচেয়ে ভয়ঙ্কর। এদিন অন্তত ৪২ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, আরো বেশি সংঘাত হলে ওই এলাকায় নিয়ন্ত্রণহীন সংকট তৈরি হবে। তিনি এমন ভয়ঙ্কর সহিংসতার জরুরী ভিত্তিতে বন্ধের আহবান জানিয়েছেন। রোববার মধ্যরাতের পর পরই গাযার একটি ব্যস্ত সড়কে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে অন্তত তিনটি ভবন ধসে পরে এবং অনেকে নিহত হয়। এর পর প্রায় সারা রাত ধরে এবং বিকেলে ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলকে লক্ষ্য করে রকেট ছোড়ে হামাস। সাইরেন বাজার সাথে সাথে লাখ লাখ ইসরায়েলি নিরাপদ আশ্রয়ে গিয়ে আশ্রয় নেন। ফিলিস্তিনিরাও সতর্কতা অবলম্বন করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু জনবহুল এবং দরিদ্র গাযা উপত্যকার অনেক বাসিন্দার আসলে যাওয়ার মতো তেমন কোন নিরাপদ আশ্রয় ছিল না। গাজার কর্তৃপক্ষ বলছে, রোববারের ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১৬ জন নারী ও ১০ শিশুসহ অন্তত ৪২ জন নিহত হয়েছে। রোববারের হামলায় আহত রিয়াদ এশকুনতানা নামে একজন ফিলিস্তিনি জানান, তিনি তার মেয়েদেরকে বাড়ির এমন একটি ঘরে ঘুম পাড়িয়েছিলেন যেটি বিস্ফোরণের স্থান থেকে সবচেয়ে দূরে বলে তিনি মনে করেছিলেন। তবে ওই রাতের পর তার মেয়েদের মধ্যে শুধু একজন বেঁচেছিলেন। যার নাম ছিল সুজি। তার বয়স মাত্র ৬ বছর। তার স্ত্রী এবং আরো তিন সন্তান মারা যায়। রিয়াদ বলেন, মেয়েরা বেঁচে আছে কিনা তা দেখতে ছুটে যাই আমি। আমার স্ত্রী লাফিয়ে পড়ে মেয়েদের জড়িয়ে ধরে ঘরের বাইরে নিয়ে আসার চেষ্টা করছিল। আর তখনই ঘরটিতে দ্বিতীয় ক্ষেপণাস্ত্রটি আঘাত হানে… ছাঁদ ধসে পড়ে আর আমি ধ্বংস্তুপের নিচে পড়ি। গাজার উদ্ধারকর্মীরা হামলার পর ধ্বংস্তুপের নিচ থেকে মানুষকে উদ্ধার করতে দিনভর চেষ্টা চালিয়েছে। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, নিহতদের মধ্যে ডা. আয়মান আবু আল-আউফ নামে একজন চিকিৎসকও রয়েছেন। তিনি শিয়া হাসপাতালের অভ্যন্তরীণ মেডিসিন বিভাগের প্রধান এবং করোনাভাইরাস টিমের সদস্য ছিলেন। ইসরায়েলে হামাসের ছোঁড়া রকেট মধ্য এবং দক্ষিণ ইসরায়েলের আশকেলন, আশদদ, নেটিভটসহ অন্যান্য এলাকায় আঘাত হানে। তবে হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments