Thursday, April 25, 2024
Homeদেশজুড়েজেলার খবরশিক্ষক ৩ ও শিক্ষার্থী ৪৫ জন, বিদ্যালয়ে আসেন না কেউই 

শিক্ষক ৩ ও শিক্ষার্থী ৪৫ জন, বিদ্যালয়ে আসেন না কেউই 

গাইবান্ধার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মচারী সংখ্যা চারজন, শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৫। বিদ্যালয়টিতে শুধুমাত্র দপ্তরি কাম প্রহরী ছাড়া কেউই যাননা নিয়মিত। সেখানকার তিনজন শিক্ষকের মধ্যে দায়িত্ব অবহেলার দায়ে দুই বছর আগে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে একজনকে। অপর দুজন শিক্ষক প্রতি সপ্তাহের একদিন উপস্থিত হয়ে শুধু সাত দিনের হাজিরা স্বাক্ষর। শিক্ষার্থীদের উপস্থিত দেখাতে শিক্ষকরাই ছাত্র-ছাত্রীর হাজিরা দিয়ে দেন করেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। 

এমনটি ঘটে জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চর কাপাসিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।জানা যায়, বিদ্যালয়টি উপজেলা শহর থেকে প্রায় ১৪ কি.মি. দূরে হওয়ায় কোনো খোঁজ-খবরই রাখে না শিক্ষা সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। যার সুযোগ নিয়ে থাকেন এই শিক্ষকরা। আর এর খেসারত দিতে হচ্ছে ওই বিদ্যালয়ের কোমলমতী শিক্ষার্থীদের।

সরেজমিনে, ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় সেখানে নেই শিক্ষক-শিক্ষার্থীর কেউই। টানানো হয়নি জাতীয় পতাকাও। নির্জনের কোনো ভূতের বাড়ির মতো পড়ে আছে বিদ্যায়টি। মাঠে রয়েছে ভাঙা ঘরের আসবাব পত্র, জন্মেছে আগাছা।

বেলা ১১টার পর আসেন বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরী তাজুল ইসলাম। বিদ্যালয়ের কক্ষে প্রবেশ করে দেখা যায়, শিক্ষার্থীর বসার বেঞ্চ এলোমেলো। একটি কক্ষের বেঞ্চের ওপর রাখা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের টিন, কাঠ এবং বাঁশের বিভিন্ন ভাঙা অংশ।

এছাড়া ধুলাবালিতে অপরিচ্ছন্ন ছিল পাঠদানের কক্ষগুলো। সবমিলে যে কারো দেখলেই মনে হবে দীর্ঘদিন কোনো মানুষের বিচরণ হয়তো হয়নি ওই সব কক্ষে। 

বিদ্যালয় সূত্র জানায়, ২০২১ সালের ২২ সেপ্টেম্বর তারিখে হঠাৎ বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন এমপি। এদিন মন্ত্রীর চোখে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছায় অনুপস্থিতি, বিদ্যালয়ের সামগ্রিক কার্যক্রমে অবহেলা ও বিভিন্ন অসঙ্গিতর প্রমাণ মেলায় সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয় প্রধান শিক্ষক হুজ্জাজুল ইসলামকে। যা অদ্যবধি অব্যাহত রয়েছে।

বর্তমানে এই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নুরুল হুদা সরকার।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চলতি মাসের ১ অক্টোবর হতে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত বিদ্যালয়ে উপস্থিত হননি শিক্ষক নুরুল হুদা সরকার ও সহকারী শিক্ষক আবু তাহের সরকার। ১ অক্টোবর হতে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষকদের হাজিরা খাতায় প্রধান শিক্ষক নুরুল হুদার উপস্থিতির স্বাক্ষর পাওয়া যায়নি। অপর শিক্ষক আবু তাহের মাসুদ শিক্ষক উপস্থিতির খাতায় অক্টোবর মাসের প্রথম দুই দিনের স্বাক্ষর দেখা গেলেও ৯ অক্টোবর তারিখ পর্যন্ত বাকি দিনগুলোর হাজিরা শিটে তিনিও অনুপস্থিত।

এসময় শিক্ষার্থী হাজিরা খাতা খুলে দেখা যায়, বিদ্যালয়টির মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৫ জন। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণিতে ছয়জন, দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১২ জন, তৃতীয় শ্রেণিতে ১০ জন, চতুর্থ শ্রেণিতে ১০ জন ও পঞ্চম শ্রেণিতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাতজন। ৯ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা সবাই অনুপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, এই বিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষক নিয়মিত আসেন না। তারা হঠাৎ একদিন-দুইদিন বিদ্যালয়ে আসেন। ফলে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও স্কুলে যায় না। হঠাৎ এলে তারা জানবে কিভাবে? ফলে পড়ালেখা হয় না। ঝড়ে পড়ছে অনেক শিক্ষার্থীও। অথচ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার জন্য লাখ টাকা ব্যয়ে তৈরি করা হয়েছে বড় নৌকা।

dhakapost

এ অবস্থার জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের দায়ী করে স্থানীয় একাধিক সচেতনমহল বলেন, বিদ্যালয়টির পরিচালনায় শিক্ষকদের অনুপস্থিতি, চরম অবহেলা, অনিয়ম ও নানা অসঙ্গিতির অভিযোগে মন্ত্রী যেখানে প্রধান শিক্ষককে অব্যহতি দিলেন। তারপরেও কারো টনক নড়েনি। একইভাবে অনিয়ম-অবহেলা করেই যাচ্ছেন এই দুই শিক্ষকও। দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো এই বিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করে এই এলাকার শিক্ষার্থীদের শিক্ষা অর্জনের পথ সুগম করতে আবারো প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তারা।

বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরী তাজুল ইসলাম। তিনি জানান, এই স্কুলের শিক্ষকরা মূলত সপ্তাহে দুই-একদিন বিদ্যালয়ে আসেন। নদী বেষ্টিত হওয়ায় শিক্ষার্থীরাও আসতে ভয় পায়।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মোবাইল ফোনে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল হুদা সরকার মূল প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান এবং বলেন, আমার চোখ অপারেশন হয়েছে দুদিন হলো। চিকিৎসক আমাকে নড়াচড়া করতে নিষেধ করেছেন। তার দাবি তিনি মৌখিকভাবে দুই দিনের ছুটিতে আছেন। সহকারী শিক্ষক আবু তাহেরের বিষয়ে কোনো কিছু বলতে পারছি না বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এর আগে এমন বিষয় আমার জানা ছিল না বা আমাকে কেউ জানায়নি। সংশ্লিষ্টদের মাধ্যমে বিষয়টি খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছি। সত্যতা পাওয়া গেলে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গাইবান্ধার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. হারুনর রশিদের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। ফলে তার মন্তব্য জানা যায়নি।

Most Popular

Recent Comments