Tuesday, October 20, 2020
Home শেরপুর শেরপুরে বন্যায় পাশ্ববর্তী জেলা শহর রক্ষা বাঁধে বন্যার পানিতে বিলিন হওয়া বাড়ী...

শেরপুরে বন্যায় পাশ্ববর্তী জেলা শহর রক্ষা বাঁধে বন্যার পানিতে বিলিন হওয়া বাড়ী ঘরের মানুষ

মোঃ মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু

শেরপুরে বন্যার পানি বাড়তে থাকায় বাড়িঘর ব্রহ্মপুত্র নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ায় লোকজন আশ্রয় নিয়েছে পার্শ্ববর্তী জেলা জামালপুর শহরের রক্ষা বাঁধে ।ওই মানুষগুলো এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। অনেকেই আবার নিকটতম আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। দ্বিতীয় দফায় পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতির দিকে যাচ্ছে। এছাড়া ২৭ জুলাই সোমবার সকাল থেকে অধ্যবদী ভারী বর্ষণে জেলা শহরের অধিকাংশ রাস্তা-ঘাট পানিতে ডুবে যায়। ড্রেনের ব্যবস্থা অপ্রতুল্য। অনেকের বাড়িতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় জেলা শহরবাসীরা কষ্টে রয়েছেন। আজ মঙ্গলবার দুপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী জিয়াসমিন খাতুন জানান, সদর উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ব্রহ্মপুত্র নদীর পানি বিপদসীমার ৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর চেল্লাখালি, ভোগাই ও নাকুগাঁও নদীর পানি এখনো বিপদসীমার নিচে রয়েছে।

শেরপুর সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আকবর আলী বলেন, প্রথম দফার বন্যায় ব্রহ্মপুত্র নদের তীরবর্তী এলাকার ২০-২৫টি বাড়ি বানের পানিতে বিলীন হয়ে যায়। সোমবার সকাল থেকে বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় অনেক বাড়িঘর নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া ওই ইউপির ১৭টি গ্রামই বন্যার পানি ঢুকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ সার্বিক অবস্থা খারাপ হয়ে পড়েছে এর মধ্যে বেপারীপাড়া এবং ভাগলগড় গ্রাম দুটি এখন পানির নিচে। ওই দুই গ্রামের বেশ কিছু মানুষ এখন জামালপুর শহর রক্ষা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছেন। প্রথম দিকে বানভাসিদের ত্রাণ সহায়তায় হিসেবে ৬ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এবার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৪ মেট্রিক টন চাল পাওয়ার কথা রয়েছে। এসব ত্রাণসামগ্রী ৪০০ অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ করা হবে। চরমোচারিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম শিপন জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রায় ১২টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। প্রবল বৃষ্টি থেকে বাঁচতে অনেকেই পলিথিন দিয়ে ঘর বানিয়ে অস্থায়ীভাবে বসবাস করছেন।

অন্যদিকে শেরপুরের সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। আর এ পর্যন্ত বন্যার পানিতে ডুবে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। শেরপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ওয়ালীউল হাসান বলেন, মাঝখানে বন্যার পানি কমে ছিল। কিন্তু ভারী বর্ষণের কারণে আজ তা আবার বেড়েছে। বন্যার্তদের সহায়তায় ১৫০ মেট্রিক টন চাল ও আড়াই লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৮৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া আরো বরাদ্দ চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এ পর্যন্ত জেলায় ১৬ হাজার পরিবার পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

ঘরে থেকেই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে শিক্ষার্থীদের : প্রধানমন্ত্রী

আ.জা. ডেক্স: স্কুল বন্ধের এই সময়ে শিক্ষার্থীদের ঘরে থেকেই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।...

শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত

আ.জা. ডেক্স: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের স্মারক...

বকশীগঞ্জে পৌর আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সংর্ঘষ

নিজস্ব সংবাদদাতা: জামালপুরের বকশীগঞ্জে পৌর আওয়ামী লীগ ও উপজেলা ছাত্রলীগের সংঘর্ষে প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহতদের তাৎক্ষণিক...

প্রশ্নবিদ্ধ করতেই উপ-নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বিএনপি: কাদের

আ.জা. ডেক্স: সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই উপ-নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বিএনপি। নির্বাচনে অংশগ্রহণের নামে বিএনপি তামাশার নাটক...

Recent Comments