Tuesday, May 21, 2024
Homeশেরপুরশেরপুর গারো পাহাড়ে মানুষ ও হাতির লড়াই!

শেরপুর গারো পাহাড়ে মানুষ ও হাতির লড়াই!

শেরপুর সংবাদদাতা : বুনোহাতির তান্ডবে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন শেরপুরের পাহাড়ি গ্রামবাসীরা। তান্ডবে নির্ঘুম রাত কাটছে তাদের। জানা গেছে, সীমান্তের প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকার বনাঞ্চলে অবস্থান করছে বুনোহাতির দল। হাতি কবলিত ৬টি ইউনিয়নের প্রায় ৫০টি পাহাড়ি গ্রামগুলোতে গারো, হাজং, কোচ, বানাই, হিন্দু মুসলমানসহ বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর প্রায় ৫০ হাজার লোকের বসবাস। ১৯৯৫ সালে এসব পাহাড়ি গ্রামগুলোতে শুরু হয় বুনোহাতির পদচারণা। জানা গেছে, হাতির দল দিনে গভীর অরণ্যে আশ্রয় নিচ্ছে। আর সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে খাদ্যের সন্ধানে নেমে আসছে লোকালয়ে। ঘর-বাড়ি, ক্ষেতের ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে চলেছে। ক্ষেতের ফসল রক্ষার্থে পাহাড়ি গ্রামবাসীরা রাত জেগে পাহাড়া দিচ্ছে। ঢাক-ঢোল ও পটকা ফুটিয়ে, মশাল জ¦ালিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা চলছে। কিন্তু যতোই হাতি তাড়ানোর চেষ্টা চলছে ততই হাতির দল তেড়ে আসছে লোকালয়ে। হাতির কবল থেকে রক্ষা পেতে ঘর-বাড়ি ফেলে রেখে অনেকেই চলে আসছেন লোকালয়ে। হাতি চলে যাবার পর বাড়ি ফিরছেন তারা। এতে যেন পাল্লা দিয়েই বাড়ছে মানুষ ও হাতির লড়াই। নির্ঘুম রাত কাটছে পাহাড়ি গ্রামবাসীদের। হাতি কবলিত এলাকাগুলোতে নেই ন্যাচারাল বন। একসময় ২০ হাজার একর বনের জমিতে শাল গজারী বন ছিল। ৯০ দশকের পর থেকে এসব বন পরিষ্কার করে সৃজন করা হয় সামাজিক বন। শতশত একর জমিতে চাষাবাদ হচ্ছে। গড়ে উঠেছে জনবসতি। এতে গড়ে উঠছে না হাতির খাদ্য। বনের জমি বেদখল হওয়ায় সংকুচিত হয়ে পড়েছে হাতির আবাস্থল। জানা গেছে, বন বিভাগের পক্ষ থেকে গারো পাহাড়ে হাতির ২টি খাদ্য ভান্ডার গড়ে তোলার জন্য সরকারি অর্থ বরাদ্দ হয়। কিন্তু ওই খাদ্য ভা-ার আর আলোর মুখ দেখেনি। নাওকুচি গ্রামের ইউপি সদস্য গোলাপ হোসেনসহ গ্রামবাসীরা জানান, বুনোহাতির তা-বে পাহাড়ি এলাকার জমিগুলো চাষাবাদ করা সম্ভব হয় না। অনেকেই জীবিকার তাগিদে হাতির আক্রমণের ভয় উপেক্ষা করে চাষাবাদ করছেন। এ ছাড়া পাহাড়ি গ্রামগুলোতে নেই কোনো কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা। ফলে অতিকষ্টে দিনাতিপাত করছেন তারা। গজনী গ্রামের অবিও সাংমা বলেন, পেটে খাবার না থাকলে ও প্রতি রাতেই হাতি তাড়াতে মশালে ব্যবহারের জন্য কমপক্ষে ২ লিটার কেরোসিন তেল ঘরে রাখতে হয়। অনেকের পক্ষে তা সম্ভব হয় না। হাতির আক্রমণ শুরুর দিকে প্রশাসন বা জনপ্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে পাহাড়ি গ্রামবাসীদের মশালে ব্যবহারের জন্য কেরোসিন তেল বিতরণ করা হতো। কিন্তু এখন আর তা করা হয় না। হাতির কবল থেকে পাহাড়ি গ্রামবাসীদের রক্ষার্থে বন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সোলার ফেন্সিং স্থাপন করা হয়। কিন্তু ঠিকাদার নি¤œমানের কাজ করায় তা কোনো কাজে আসছে না। অকেজো হয়ে পড়ে আছে সোলার ফেন্সিং। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ১৯৯৫ সাল থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত হাতির আক্রমণে ৬০ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আহত শতাধিক। আর ৩৩টি হাতির মৃত্যু হয়েছে। ৩টি হাতি হত্যার বিষয়ে মামলা হয়েছে। এসব হাতির বেশির ভাগই মৃত্যু হয়েছে বৈদ্যুতিক ফাঁদে, নয়তো ধারালো অস্ত্রের আঘাতে। হাতির সাথে যুদ্ধ করে বিপর্যস্ত গ্রামবাসীদের খাদ্যসহায়তা ও হাতি তাড়াতে কেরোসিন তেল বিতরণ ব্যবস্থা চালু রাখার দাবি উঠেছে জনপ্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে। শ্রীবরদী উপজেলার বালিজুরি রেঞ্জ কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম বলেন, হাতিকবলিত এলাকায় বসবাসকারীদের সরিয়ে নেয়া ও খাদ্য ভা-ার গড়ে তোলা হলে মানুষ-হাতি দ্বন্দ্ব কমিয়ে আনা যাবে। ময়মনসিংহ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আ ন ম আবদুল ওয়াদুদ বলেন, হাতির আক্রমণে নিহতদের পারিবার ও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ বাবদ ২০২৪ সাল পর্যন্ত এক কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে। শেরপুর জেলা প্রশাসক আব্দুল্লাহ আল খায়রুম বলেন, সীমান্তের গারো পাহাড়ে হাতি-মানুষের দ্বন্দ্ব নিরসনে জনগণকে সচেতনতার লক্ষ্যে বন বিভাগের পক্ষ থেকে রেসপন্স টিম কাজ করছে। এ ছাড়া সীমান্ত এলাকায় সোলার ফ্যানসিং স্থাপন এবং অভয়ারণ্য গড়ে তোলাসহ টেকসই পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। পাহাড়ে হাতিসহ প্রাণবৈচ্যি রক্ষায় চেষ্টাও করা হচ্ছে।

Most Popular

Recent Comments