Tuesday, April 23, 2024
Homeশেরপুর১৩ বছর পালিয়ে থাকার পর আসামি গ্রেপ্তার

১৩ বছর পালিয়ে থাকার পর আসামি গ্রেপ্তার

শেরপুর সংবাদদাতা : শেরপুরের নকলার চাঞ্চল্যকর শিশু অপহরণ মুক্তিপণ দাবির মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত তাসলিমা খাতুনকে ১৩ বছর পালিয়ে থাকার পর চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১৪। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের হাটহাজারীর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে র‌্যাব-১৪ জামালপুর ও চট্টগ্রাম যৌথ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে। তাসলিমা নকলা উপজেলার পাঁচকাহনিয়া গ্রামের হোসেন আলীর স্ত্রী। জানা যায়, ভিকটিম আকলিমা খাতুন (৪) জেলার নকলা থানার শালখা গ্রামের মো. আবদুল জলিলের মেয়ে। আসামি তাছলিমা ভিকটিমের বাবার মামলার বাদী মো. আবদুল জলিলের (৩০) মামাতো বোনের সতিন। আত্মীয়তার সুবাদে প্রায়ই বাদীর বাড়িতে যাতায়াত করতো তাসলিমা। ঘটনার ২ দিন আগে ২০১১ সালের ৯ অক্টোবরে আসামি বাদীর বাড়িতে বেড়াতে আসে। পরে ১২ অক্টোবর বাদীর শিশুকন্যা আকলিমাকে নিয়ে ঘুরতে বের হয়। কিন্তু ৪/৫ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও বাড়িতে না ফেরায় আসামির স্বামী মো. হোসেন আলীকে ফোন দিলে সে জানায় তার মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছে। সে ঢাকার কাঁচপুর ব্রীজ এলাকায় আছে। মেয়েকে নিতে হলে ১ লাখ টাকা দিতে হবে। অন্যথায় ভিকটিমকে বিদেশে পাচার করে দেওয়া হবে। বিষয়টি নকলা থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ ঢাকা থেকে অপহৃত আকলিমাকে উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে নকলা থানায় তাসলিমাকে একমাত্র আসামি করে মামলা দায়ের করে শিশুটির বাবা আবদুল জলিল। এ ঘটনার পর থেকেই তাসলিমা পালিয়ে যায়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত শেষে ওই মামলার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালত দীর্ঘ বিচার কার্যক্রম শেষে ২০২০ সালের ১৪ ডিসেম্বর শেরপুরের নারী ও শিশুনির্যাতন ট্রাইবুনালের বিচারক আসামি মোছাঃ তাসলিমা’কে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭ ধারায় ১৪ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদ- এবং ৮ ধারায় যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ- ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেন। র‌্যাব-১৪, জামালপুরের কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মো. আবরার ফয়সাল সাদী গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ধৃত আসামীকে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য শেরপুর জেলার নকলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

Most Popular

Recent Comments