ঢাকা   রবিবার ০৫ এপ্রিল ২০২০ | ২২ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Image Not Found!

সর্বশেষ সংবাদ

জামালপুরে আওয়ামী লীগের জনসভা জনসমুদ্রে পরিনত

Logo Missing
প্রকাশিত: 02:07:51 am, 2020-02-16 |  দেখা হয়েছে: 108 বার।

হাফিজুর রহমান:

বিএনপি জামায়াতের সকল ষড়যন্ত্র রুখতে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সর্তক থাকতে হবে। জনগণের শক্তিই সবচেয়ে ক্ষমতাধর। মাননীয় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত। আজকে বাংলাদেশ সারা পৃথিবীতে উন্নয়নের রোল মডেল। অর্থনীতির সকল ক্ষেত্রে যে উন্নয়ন হয়েছে তা অভূতপূর্ব, সারা পৃথিবীতে নন্দিত, প্রসংশিত। সারা পৃথিবী আজ অবাক বিস্ময়ে দেখে বাংলাদেশের উন্নয়ন। শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) জামালপুর জিলাস্কুল মাঠে জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে আয়োজিত বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বিএনপি কখনো সরকারের পতন ঘটাতে পারবে না। যারা পতন ঘটতে চেষ্টা করেছে তারা সবাই আজ আওয়ামী লীগের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে। বিএনপিও আমাদের কাছে নিঃশর্ত আত্মসম র্পণ করবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মির্জা আজম বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্রতম দেশ ছিল সেই জায়গা থেকে গত ১১ বছরে আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজকে বিশ্বে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে মাথা উচু করে দাড়িয়েছে এবং এখান থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে নিয়ে যেতে তিনি নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এই জামালপুর বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে অবহেলিত, অনুন্নত জনপদ ছিল, ৬৪ জেলার মধ্যে এই জেলা ছিল ৬৩তম অবস্থানে। জামালপুর বাসীর জন্য সেতুমন্ত্রীর কাছে ইতোমধ্যে কিছু দাবী পেশ করা হয়েছে। আমরা জামালপুরবাসী ৬৩ তম জেলা থেকে এগিয়ে যেতে চাই এবং সেলক্ষ্যে আমরা ২০১৪ সাল থেকে ৫ বৎসর আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে যা চেয়েছি তিনি তাই দিয়েছেন। আজকে জামালপুরের মানুষের নতুন করে প্রত্যাশা বেশি কিছু নাই। জননেত্রী শেখ হাসিনা সমস্ত প্রত্যাশা ইতোমধ্যে পূরণ করেছেন। কিন্তু সড়ক যোগাযোগ মন্ত্রীর কাছে আমাদের সামান্য কিছু দাবী-দাওয়া আছে। সেই দাবীগুলো আজকে আমাদের ৩ জন প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং কেন্দ্রী নির্বাহী কমিটির ১০ জন নেতার কাছে অনুরোধ করব, জামালপুরবাসীর পক্ষে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে আপনারা মাননীয় সড়ক যোগাযোগ মন্ত্রীর কাছে এই দাবী-দাওয়া গুলো পোঁছাবেন এবং বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখবেন।

মুজিব জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত জনসভা লক্ষাধিক লোকের সমাগমে জনসমুদ্রে পরিণত হয়। জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় আয়োজিত জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মির্জা আজম এমপি, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহাম্মদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক বি.এম মোজাম্মেল হক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বাবু অসীম কুমার উকিল এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামছুন্নাহার চাঁপা, কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য মারুফা আক্তার পপি, পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এমপি, মোঃ ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি, ইঞ্জিনিয়ার মোজাফ্ফর হোসেন এমপি, বেগম হোসনে আরা এমপি প্রমুখ।

জনসভার নির্ধারিত সময় ২টায় ঘোষণা থাকলেও সকাল থেকেই সকাল থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার লোকজন মুজিব শতবর্ষের ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে মিছিলে মিছিলে আসতে থাকে। দুপুর ১২টার আগেই জনসভাস্থল কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়। উপচে পড়া জনতা মাঠে স্থান না পেয়ে জনসভাস্থলের পাশে স্টেডিয়াম ও পার্শ্ববর্তী রাস্তায় অবস্থান নেয়। জনসভা মঞ্চে জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিকলীগ, তাঁতি লীগের সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সকাল থেকেই আওয়ামীলীগের মুজিব বর্ষের এ জনসভার অভিমুখে নেমেছে জনতার ঢল। শহর ছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন থেকে আিওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ যোগ দিয়েছে জনসভায়। জনসভাকে কেন্দ্র করে জামালপুর শহর পরিণত হয়েছে মিছিলের শহরে। এ যেন জামালপুর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মিলনমেলা। দেখে মনে হয়েছে জামালপুরের সব পথ এসে মিশেছে জিলাস্কুল মাঠে। বিভিন্ন স্লোগানের মাধ্যমে তারা পুরো জনসভাস্থল মুখরিত করে তোলেন। জনসভা চলাকালে নগরীর বেশিরভাগ সড়কেই যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।